Sunday, July 14, 2024

Midnapore: মদের দাম কমছে, ওষুধের দাম বাড়ছে! সরকারের অদ্ভুত নীতির বিরুদ্ধে মেদিনীপুরের রাস্তায় মেডিকেল রিপ্রেজেন্টেটিভরা

- Advertisement -spot_imgspot_img

নিজস্ব সংবাদদাতা: ওষুধের দাম অথবা মদের দাম নিয়ন্ত্রণ করে সরকারের নীতি। মদই হোক অথবা ওষুধের দাম কী হবে তাতে উৎপাদকের পাশাপাশি সরকারের ভূমিকাও যথেষ্ট। যে সরকারের আমলে মদের দাম কমে আর জীবনদায়ী ওষুধের দাম বাড়ে বুঝতে হবে সেই সরকার নাগরিকদের জন্য মদ যতটা সহজলভ্য করে ততটা ওষুধ নয়। উভয়ক্ষেত্রেই সরকারের উদ্দেশ্য কর্পোরেট লবির হাত শক্ত করা। অবিলম্বে ওষুধের দাম কমাতে হবে, জীবনদায়ী ওষুধকে সাধারণ মানুষের ক্রয়ক্ষ মতার আওতায় আনতে হবে, কেন্দ্র এবং রাজ্যের কাছে এমনই ১৬ দফা দাবী নিয়ে বুধবার পশ্চিম মেদিনীপুরের বিভিন্ন স্থানে রাস্তায় নামলেন জেলার সহস্রাধিক মেডিকেল এবং সেলস রিপ্রেজেন্টেটিভস কর্মীরা।

আরো খবর আপডেট মোবাইলে পেতে ক্লিক করুন এখানে

এদিন নিজেদের কাজ বন্ধ রেখে জেলা জুড়েই মিছিল পিকেটিং ও জমায়েত এবং পথসভার মধ্যদিয়ে আম জনতার কাছে ওই ১৬ দফা দাবী নিয়ে হাজির হয়েছিলেন মেডিকেল এবং সেলস রিপ্রেজেন্টেটিভ কর্মীরা। জেলার খড়্গপুর ও ঘাটাল মহকুমা শহরেও হয় মিছিল ও পথসভার পাশাপাশি জেলা সদর মেদিনীপুরের রাজপথে সকাল থেকে উদ্দীপ্ত মিছিল সহ ধর্মঘটের দাবী নিয়ে প্রচার চলে। দুপুর থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত চলে পিকেটিং সহ পথ সভা। সেই সভা থেকে আগামী ২৪ ও ২৫ ফেব্রুয়ারী দুদিনের সর্বভারতীয় ধর্মঘটের বিষয়গুলি তুলে ধরে দেশ বাঁচাও আন্দোলনে সাধারণ মানুষকে সামিল হওয়ার আহ্বান জানানো হয়।

আন্দোলনে সামিল হওয়া ওই রিপ্রেজেন্টেটিভরা জানিয়েছেন, এক সময়ে যে কর্ম নিরাপত্তা নিয়ে তাঁদের অগ্রজরা এই পেশায় এসেছিলেন তা ক্রমশঃ নিরাপত্তাহীন হয়ে পড়ছে। বহুজাতিক ও কর্পোরেট পুঁজি এই পেশার মানুষদের এক অনিশ্চিত জীবনের দিকে ঠেলে দিয়েছে। টার্গেট পূরণের ঘোড়দৌড়ে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে এই সব মানুষদের সংসার। সর্বত্রই ছাঁটাইয়ের আতঙ্কে রাখা হয় কর্মীদের। ওষুধ কোম্পানিগুলি শুধুমাত্র লভ্যাংশ বাড়ানোর লক্ষ্যেই কাজ করে থাকে। কোনও সামাজিক দায়বদ্ধতা নেই এদের। আন্দোলনকারীরা বলেছেন,ঔষধ শিল্প সহ তার ফিল্ড কর্মীদের প্রতি কেন্দ্র ও রাজ্য দুই সরকারের ভ্রান্ত পদক্ষেপ নাগরিক নিরাপত্তাকেও পেছনের সারিতে ঠেলে দিয়েছে। সরকারেরও একটাই লক্ষ্য,কর্পোরেট স্বার্থ রক্ষা করা।

বুধবারের মিছিল থেকে আওয়াজ উঠেছে, নতুন করে চালু করা চারটি শ্রমকোড বাতিল, জীবনদায়ী ঔষধের লাগাম ছাড়া মূল্য বৃদ্ধি রোধ, এবং জীবনদায়ী ঔষধ সহ চিকিৎসা সরঞ্জামের উপর থেকে জি এস টি ছাড় দিতে হবে। পাশাপাশি মদের দাম কমিয়ে জীবন দায়ী ঔষধের উপর দাম বাড়ানোর ঘটনাকে ধিক্কার জানানো হয়। অন লাইনে ঔষধ বিক্রিতে একচেটিয়া কর্পোরেটের বাজার দখল সহ দেশের সরকারী ও বেসরকারী ঔষধ শিল্পকে ধ্বংস করার মধ্য দিয়ে লক্ষ লক্ষ মেডিকেল সেলস রিপ্রেজেন্টেটিভস কর্মীকে কর্মহীন করে রুটি রুজির সংকটে ঠেলে দেওয়ার বিরুদ্ধে প্রতিকার চেয়ে ডাক দেওয়া ওই দুদিনের ধর্মঘটকে সমর্থন করার জন্য আবেদন জানানো হয় সাধারণ মানুষের কাছে। ডাক দাবী জানানো হয়েছে রাজ্য সরকারকে অবিলম্বে ন্যূনতম মাসিক বেতন ২৬ হাজার টাকা সহ আট ঘন্টা কাজের নীতি প্রনয়ন করতে হবে।

- Advertisement -
Latest news
Related news