Sunday, July 14, 2024

Midnapore: পূর্ব মেদিনীপুরের রাস্তায় ধস! পাঁশকুড়ার পথে কাঁসাই গর্ভে দোকান, বসতি, আরও বড় বিপদের আশঙ্কা

- Advertisement -spot_imgspot_img

নিজস্ব সংবাদদাতা: বড়সড় বিপর্যয়ের মুখে পূর্ব মেদিনীপুর জেলার তমলুক ব্লকের অন্তর্গত শ্রীরামপুর থেকে পাঁশকুড়ার প্রতাপপুর যাওয়ার অন্যতম যোগাযোগ সূত্র প্রধানমন্ত্রী গ্রামীণ সড়ক যোজনার রাস্তাটি। রাস্তার একটি বড় অংশই ধসে গিয়ে কাঁসাইয়ের গর্ভে চলে গিয়েছে। রাস্তার সঙ্গে সঙ্গে সলিল সমাধি হতে বসেছে বেশকিছু দোকান, বসতি ও বড় বড় গাছেরও।

আরো খবর আপডেট মোবাইলে পেতে ক্লিক করুন এখানে
গাছ, দোকান সহ বসে যাচ্ছে রাস্তা

ঘটনার খবর পেয়েই জেলার বিধায়ক তথা রাজ্যের সেচমন্ত্রী সৌমেন মহাপাত্র পদস্থ ইঞ্জিনিয়ারদের নিয়ে ঘটনাস্থলে ছুটে যান। এলাকা পরিদর্শনের পর উপযুক্ত ব্যবস্থা নেওয়ারও আশ্বাসও দিয়েছেন তিনি যদিও স্থানীয়দের আশঙ্কা এই অবস্থা থেকে বেরিয়ে আসার সম্ভবনা খুবই ক্ষীণ।

নদী গর্ভে ঘরবাড়ি

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে সোমবার সকালে ঘটনাটি ঘটেছে শ্রীরামপুর-প্রতাপপুর প্রধানমন্ত্রী গ্রামীন সড়ক যোজনার রাস্তার দোবাঁধি বাজার লাগোয়া এলাকায়। এই এলাকার একটি বৃহৎ অংশই কাঁসাই নদীর পাড় বরাবর গিয়েছে। ওই অংশেররই প্রায় ৮০ মিটার দৈর্ঘ্য জুড়ে ফাটল দেখা যায়। রাস্তা ওই লম্বা বরাবর প্রথমে আড়াআড়ি ফেটে যায় এবং তারপর ধীরে ধীরে রাস্তার ওই অংশ বসে যেতে যেতে শেষমেশ তলিয়ে যায় নদীগর্ভে।

ঘটনায় বেশ কয়েকটি দোকানও ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। পরিস্থিতি যা তাতে যে কোনও মুহূর্তে আর বড়সড় বির্পযয়ের আশঙ্কা করছেন স্থানীয়রা। এদিন সকাল সাড়ে ৯ টা নাগাদ রাস্তার ফাটল নজরে এসেছিল স্থানীয়দের। সঙ্গে সঙ্গে নিজেদের উদ্যোগে দোকান থেকে জিনিসপত্র সরিয়ে ফেলার কাজ শুরু করে দেন দোকানিরা।

ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন সেচমন্ত্রী সৌমেন মহাপাত্র, তমলুকের বিডিও সৌমেন মন্ডল এবং সেচ দপ্তরের ইঞ্জিনিয়াররা। সেচ দপ্তরের আধিকারিকদের ধারণা নদীর জল দ্রুত কমে যাওয়া এবং পলি নেমে যাওয়ার ফলে এই ধস বলে মনে করা হচ্ছে।

পরিদর্শন করেছেন মন্ত্রী ও পদস্থ আধিকারিকরা

মন্ত্রী বলেছেন, ‘ ৮০ মিটারের মতো রাস্তায় ধস নেমেছে। মঙ্গলবার থেকে মেরামতের কাজ শুরু হয়ে যাবে।’ রাস্তায় ধস নামার ফলে আপাতত প্রশাসনের পক্ষ থেকে কিছু বিধি নিষেধ জারি করা হয়েছে। যান চলাচল বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে রাস্তায়। যদিও যেভাবে এই ধস নেমেছে তাতে রাস্তাটির পুনরুদ্ধারের সম্ভবনা নেই বলেই মনে করছেন অনেকে।

- Advertisement -
Latest news
Related news