Tuesday, April 16, 2024

Tragic death in Puja: দুর্গার বিসর্জন দিতে গিয়ে হরপা বানে বিসর্জন অন্তত ৭ জনের! নিখোঁজ বহু

- Advertisement -spot_imgspot_img

নিজস্ব সংবাদদাতা: বিসর্জন দিতে গিয়ে ভয়াবহ হরপা বানে ভেসে গিয়ে বহু নারী পুরুষ শিশু সহ বহু মানুষের মৃত্যুর আশংকা করা হচ্ছে। এইদুর্ঘটনায় এখনও অবধি ৭ টি মৃতদেহ উদ্ধার হয়েছে। স্থানীয়রা ১১ জনকে জীবিত অবস্থায় উদ্ধার করেছেন। তবে আশংকার কারন আরও বাড়ছে এই কারনে যে ৩০ থেকে ৪০ জন ভেসে গিয়েছেন। তাঁরা কোথায় গিয়ে উঠেছেন বা আদৌ উঠেছেন কিনা তাই নিয়ে সংশয়ে রয়েছেন সবাই। জানা গেছে বিসর্জন দিতে আসা নারী পুরুষ ভর্তি একটি গাড়ি নদীতে আটকে পড়ে বানে। আটকে পড়েন বিসর্জন দিতে আসা বহু লোকজন। পরে ওই গাড়িটি ভেসে গেলে এই দুর্ঘটনা ঘটে যায়। ৭ মৃতদেহ উদ্ধার করে মাল হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। তবে পুলিশ বা প্রশাসনের তরফে এখন মৃত্যুর সংখ্যা নিশ্চিত করে জানানো হয়নি। ঘটনার পরই দ্রুত প্রশাসনের উদ্যোগে জেসিবি নামিয়ে উদ্ধারকাজ শুরু করা হয়। জানা গেছে, পাহাড় থেকে প্রবল জলস্রোত নামতে থাকায় উদ্ধার কাজে কিছুটা সমস্যা হয়। ঘটনায় অন্তত ৩০ থেকে ৪০ জন নিখোঁজ বলে জানা যাচ্ছে। যদিও যুদ্ধকালীন তৎপরতায় উদ্ধার কাজ শুরু হয়েছে।

আরো খবর আপডেট মোবাইলে পেতে ক্লিক করুন এখানে

বেশ কয়েকজনকে ইতিমধ্যে উদ্ধার করা হয়েছে বলে জানা যাচ্ছে। প্রায় ১১ জনকে উদ্ধার করে অবশ্য স্থানীয় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তবে স্থানীয় এলাকায় প্রশাসনের বিরুদ্ধে ক্ষোভ তৈরি হয়েছে। অবিলম্বে সেনা নামানোর দাবি উঠছে। ঘটনাস্থলে উত্তরবঙ্গের দুই মন্ত্রীকে পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এমনটাই জানা যাচ্ছে। এমনকি ঘটনা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন বলেও সূত্রের খবর। তবে ঘটনার পরেই স্থানীয় বিধায়ক এবং রাজ্যে মন্ত্রী বুলচিক বড়াই জানাচ্ছেন, ইতিমধ্যে ঘটনাস্থলে পৌঁছে গিয়েছি। উদ্ধারকাজ চলছে। তবে তাঁর কাছে ছয়জনের মৃত্যু হয়েছে বলে জানিয়েছেন তিনি। জাতীয় বিপর্যয় মোকাবিলা দফতর এবং রাজ্যে বাহিনী উদ্ধার কাজ শুরু করেছে বলে খবর। সারারাত আজ উদ্ধার কাজ চলবে বলেও প্রশাসনের তরফে জানানো হয়েছে।

পাশাপাশি রাজ্যের মন্ত্রী উদয়ন গুহ জানিয়েছেন, দুর্ঘটনা খুবই দুঃখজনক। উদ্ধার কাজ চললে আরও বোঝা যাবে। সকালেই ঘটনাস্থলে যাবেন বলে জানিয়েছেন উদয়ন গুহ। আর এরপরেই মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে আলোচনা করে পরবর্তী পদক্ষেপ নেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন তিনি। তবে মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে কথা হয়েছে বলে জানিয়েছেন রাজ্যের মন্ত্রী। তবে এই ঘটনার পরেই প্রশাসনের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন তুলতে শুরু করেছে বিরোধীরা। কেন সতর্কতা নেওয়া হল না তা নিয়ে প্রশ্ন বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলির। সিপিএম রাজ্য সম্পাদক মহঃ সেলিম জানিয়েছেন, এই ঘটনা অত্যন্ত উদ্বেগজনক। এই মুহূর্তে উদ্ধারে সবরকম সহযোগিতা করার আবেদনও জানিয়েছেন তিনি।‌ স্থানীয় সূত্রে জানা যাচ্ছে, ঘটনাস্থলে সেই সময় কোনও জল ছিল না। ফলে বিসর্জনের গাড়িগুলি একেবারে মাঝ নদীতে নিয়ে গিয়ে নিরঞ্জন করা হচ্ছিল। আর সেই সময় হঠাত করেই জল বেড়ে যেতে শুরু করে। আর এরপরেই বহু মানুষ ভেসে যান বলে খবর। আর মুহূর্তে একাধিক মানুষকে ভাসিয়ে নিয়ে চলে যায়। সবাই সবাইকে বাঁচানোর চেষ্টা করলেও ব্যর্থ হয় সবাই। একাধিক মহিলা এবং শিশুকেও ভাসিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছে বলে জানা যাচ্ছে।

- Advertisement -
Latest news
Related news