Saturday, April 20, 2024

Suvendu Adhikari: ঘৃনা ভাষন! বাংলার প্রথম মামলা শুভেন্দুর বিরুদ্ধেই

- Advertisement -spot_imgspot_img

নিজস্ব সংবাদদাতা: গত ২১ আগস্ট ঘৃনা ভাষন নিয়ে দেশের পুলিশকে আরও কঠোর হওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন দেশের সর্বোচ্চ আদালত। ৯ দিনের মাথায় লাগাতার ঘৃণা-ভাষণের অভিযোগে রাজ্যের বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারীর বিরুদ্ধে জামিন অযোগ্য ধারায় মামলা রুজু করল পূর্ব মেদিনীপুর পুলিশ। উল্লেখ্য দেশ জুড়ে বেড়ে চলা ক্রমাগত ঘৃণা ভাষন দেশের সম্প্রীতি ও সৌহার্দ্যকে বিপদজ্জনক দিকে ঠেলে দিচ্ছে উল্লেখ করে সুপ্রিম কোর্ট বলে এই বিষয়ে পুলিশ কে আরও কঠোর হতে হবে এবং পুলিশ যদি সেই দায়িত্ব পালন না করে তবে পুলিশের বিরুদ্ধেই এফআইআর দায়ের করা হবে। এমনটাই উল্লেখ করে সম্প্রতি পূর্ব মেদিনীপুরের নন্দকুমার থানায় শুভেন্দু অধিকারীর বিরুদ্ধে একটি অভিযোগ দায়ের করেন কাঁথির বাসিন্দা এক আইনজীবি আবু সোহেল। সেই অভিযোগকে ভিত্তি করেই পূর্ব মেদিনীপুর পুলিশ বিধানসভার বিরোধী দলনেতার বিরূদ্ধে একটি জামিন অযোগ্য ধারা সহ ভারতীয় দন্ডবিধির মোট ৩ টি ধারায় মামলা দায়ের করেছে।

আরো খবর আপডেট মোবাইলে পেতে ক্লিক করুন এখানে

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, ভারতীয় দন্ডবিধির ১৫৩-এ মোতাবেক কোনও ধর্ম, বর্ন, জাতি, ভাষা, জন্মস্থান ইত্যাদি উল্লেখ করে বিভিন্ন গোষ্ঠীর মধ্যে বৈরী সম্পর্ক প্রতিস্থাপনের উদ্দেশ্যে উস্কানি মূলক বক্তব্য রাখা, ২৯৫-এ মোতাবেক কোনও ব্যাক্তি বা গোষ্ঠীর ধর্মীয় ভাবনায় আঘাত করা এবং ৫০৫(২) ধারা মোতাবেক বিভিন্ন গোষ্ঠীর মধ্যে ঘৃণা, শত্রুতা, সৃষ্টির লক্ষ্যে অসত্য কথন, গুজব ও জনশ্রুতি ছড়ানো এই তিনটি ধারায় মামলা দায়ের করেছে পুলিশ। এরমধ্যে ১৫৩-এ ধারাটি জামিন অযোগ্য অপরাধ বলে আইনের ব্যাখ্যায় বলা হয়েছে।অভিযোগকারী আবু সোহেল বলেন, রাজ্যের বিরোধী দলনেতা হয়েও কান্ডজ্ঞানহীন প্ররোচনা মূলক বক্তব্য রেখেছেন গত ২০ ও ২৪ অক্টোবর আসানসোল এবং নন্দকুমারের কালীপুজোর উদ্বোধনে গিয়ে বিরোধী দলনেতার ঘৃণা ভাষনে রাজ্যে সম্প্রীতির পরিবেশ বিঘ্নিত হয়েছে এবং এখনও হচ্ছে। এই ধরনের বক্তব্য রাজ্য জুড়ে দাঙ্গার পরিবেশ তৈরি করছে। রাজ্যের নাগরিকদের মধ্যে বিভাজন ও ভয়ভীতির অবস্থা নির্মাণ করা হচ্ছে। এই ধরনের বক্তব্য এখুনি নিবৃত্ত না করতে পারলে রাজ্যে ভয়াবহ পরিস্থিতি তৈরি হবে। আমি পুলিশের কাছে আবেদন করেছি অবিলম্বে পুলিশ যেন এই ঘৃণা ভাষন রুখতে কার্যকরী ভূমিকা পালন করে।

পূর্ব মেদিনীপুর জেলা পুলিশ সূত্রে জানানো হয়েছে, পুলিশ দেশের সর্বোচ্চ আদালতের রায়কে মান্যতা দিয়েই এই মামলা রুজু করেছে। বক্তার বক্তব্যের রেকর্ড বারবার শোনার পর অভিযোগের সারবত্তা বিচার করেই মামলা রুজু করেছে। জেলার ঊর্ধতন এক আধিকারিক জানিয়েছেন, ” আমরা মামলা দায়ের না করলে অভিযোগকারী আমাদের বিরুদ্ধেই আদালত অবমাননার মামলা দায়ের করতে পারেন কারন সুপ্রিম কোর্ট তার নির্দেশে এমনটাই বলেছেন।” উল্লেখ্য অভিযোগকারী তাঁর অভিযোগে বলেছেন, ” বিরোধী দলনেতা আসানসোল ও নন্দকুমারে মুসলিম সম্প্রদায়ের বিরুদ্ধে হিন্দুদের সরাসরি রুখে দাঁড়াতে বলে উস্কানি দিয়েছেন এই বলে যে, মুসলিমরা সন্ত্রাস করে, ভয় দেখিয়ে বাংলাকে হিন্দু শূন্য করতে চায়। পশ্চিমবঙ্গে  হিন্দুরা  সুরক্ষিত নয়। হিন্দুরা না জাগলে আগামী দিনে ধর্ম পরিবর্তন করতে হবে। হিন্দুশূন্য হলে তালিবান হবে, আফগানিস্তান হবে, বলবে ধর্ম ছাড়ো, দেশ ছাড়ো।পালাবেন কোথায়? ওদিকে পাকিস্তান, বাংলাদেশ আর এদিকে বঙ্গোপসাগর।হয়  বঙ্গোপসাগরে ঝাঁপ দিতে হবে, না হলে ইসলামিক কান্ট্রিতে গিয়ে মাথা নীচু করে ধর্ম পরিবর্তন করতে হবে। তাই এখনও যদি বাংলার  হিন্দুরা  না জাগেন, তবে জাগবেন কবে?’

রবিবার নন্দীগ্রামে এ ব্যাপারে প্রশ্ন করা হলে সংবাদমাধ্যমের কাছে জবাব এড়িয়ে যান শুভেন্দু  অধিকারী। তবে এই মামলার ঘটনায় রাজনৈতিক প্রতিহিংসা দেখছেন বিজেপি-র রাজ্য সভাপতি সুকান্ত মজুমদার। তিনি বলেছেন, ‘ কালিমালিপ্ত করার জন্য বারবার শুভেন্দু অধিকারী এবং  তাঁর পরিবারকে আক্রমণ করা হচ্ছে। আটকানোর চেষ্টা করা হচ্ছে। রাজ্যকে  বাংলাদেশ বানানোর চক্রান্তে শামিল হতে চাননি  বলেই তিনি তৃণমূল ছেড়ে বিজেপি এসেছেন। সে কারণে তাঁকে এভাবে বিব্রত করা হচ্ছে।’

- Advertisement -
Latest news
Related news