Saturday, May 25, 2024

Kharagpur Youth drowned in Bhasraghat: ৩০ ঘন্টা পেরিয়েও মেলেনি সিদ্ধান্তের দেহ! পিকনিক করতে গিয়ে সুবর্নরেখায় তলিয়ে খড়গপুরের যুবক

Siddhanta Shankar, a youth from Kharagpur town, was not rescued despite a massive search on Monday. Siddhantar's house is in Jhuli Sonamukhi area of ​​ward 29 of Kharagpur municipality. The 29-year-old decided to go on a bike picnic with some friends on Sunday holidays. A few people descended into the Subarnarekha river at Bhasraghat of Keshiari police station. At that point the decision sank. Seeing the incident, the boatman came running with a boat in the river but by then he had drowned. Then some of the local villagers searched the spot. Some drowned and searched but were not found on Sunday. As it was getting late, the search was stopped. The search started again on Monday at the initiative of the police. Civil defense personnel lowered a boat and conducted a search. A few villagers also came forward but did not find a decision even today. According to police sources, the incident took place under Jangalkanya Bridge. During the construction of the bridge, deep holes were dug for the construction of large pillars. The depth in that part of the water is deadly and the sand has moved somewhere and created a trench. If the body has entered such a place and is sitting in a groove in any way, it is difficult to find it. In that case, it is difficult to find the body if it does not float.

- Advertisement -spot_imgspot_img

নিজস্ব সংবাদদাতা: সোমবার দিন ভর তল্লাশি চালিয়েও উদ্ধার হলনা খড়গপুর শহরের যুবক সিদ্ধান্ত শঙ্করের। সিদ্ধান্তর বাড়ি খড়গপুর পৌরসভার ২৯ নম্বর ওয়ার্ডের ঝুলি সোনামুখী এলাকায়। রবিবার ছুটির দিন কয়েকজন বন্ধুর সাথে বাইক নিয়ে পিকনিকে গিয়েছিলেন ২৯ বছরের সিদ্ধান্ত। কেশিয়াড়ী থানার ভসরাঘাটে সুবর্নরেখা নদীতে নেমেছিলেন কয়েকজন। সেই সময়ে তলিয়ে যান সিদ্ধান্ত। ঘটনাটি দেখতে পেয়ে নদীতে থাকা একটি নৌকা নিয়ে মাঝি ছুটে এসেছিল কিন্তু ততক্ষণে জলে তলিয়ে যায় সে। এরপর স্থানীয় গ্রামবাসীদের কয়েকজন ঘটনাস্থলে খোঁজাখুঁজি করেন। কেউ কেউ জলে ডুবেও তল্লাশি চালান কিন্তু রবিবার খোঁজ মেলেনি তাঁর। সন্ধ্যা হয়ে যাওয়ায় সে যাত্রা তল্লাশি বন্ধ রাখা হয়।

আরো খবর আপডেট মোবাইলে পেতে ক্লিক করুন এখানে
Search operation

সোমবার ফের পুলিশের উদ্যোগে শুরু হয় তল্লাশি। সিভিল ডিফেন্স কর্মীরা একটি বোট নামিয়ে তল্লাশি চালান। এগিয়ে আসেন কয়েকজন গ্রামবাসীও কিন্তু এদিনও খোঁজ মেলেনি সিদ্ধান্তের। পুলিশ সূত্রে জানা যাচ্ছে, জঙ্গলকন্যা সেতুর নীচেই ঘটনাটি ঘটেছে। সেতু বানানোর সময় বড় বড় স্তম্ভ নির্মাণের প্রয়োজনে গভীর গর্ত খনন করা হয়েছিল।

পড়ে রয়েছে ব্যাগ ( The bag is lying )

জলের ওই অংশে গভীরতা মারাত্মক এবং কোথাও কোথাও বালি সরে গিয়ে চোরা খাতের সৃষ্টি করেছে। যদি তেমন জায়গায় দেহটি ঢুকে গিয়ে কোনও ভাবে খাঁজে বসে গিয়ে থাকে তবে তা খুঁজে পাওয়া মুশকিল। সেক্ষেত্রে দেহটি না ভেসে উঠলে খুঁজে পাওয়া মুশকিল।

স্থানীয় অভিজ্ঞদের মতে, গভীর ওই খাতের বিভিন্ন অংশ জলের ভেতরেই এক একটি বালির স্তর সৃষ্টি করেছে। সেই স্তরের ওপর ভারী কিছু পড়লে তা নিয়েই ধ্বসে পড়ে ওই স্তরটি এবং জলের গভীরে তা বালি সহ চাপা পড়ে যায়। সেক্ষেত্রে দেহ ভেসে ওঠাও মুশকিল।

উদ্বিগ্ন বন্ধু ও পরিবার

এখন কোথায় কী অবস্থায় দেহটি রয়েছে তা চিহ্নিত করাই মুশকিল হয়ে গেছে। শীতের সময় ছাড়াও বছরভর বহু মানুষ এখানে পিকনিক করতে, বেড়াতে এবং সেলফি তুলতে আসেন কিন্তু আচমকা এমন ঘটনা ঘটেনি আগে। খবর পাওয়ার পর দু’ দিন এসে নিরাশ হয়ে ফিরে গেছেন সিদ্ধান্তের পরিবার।

জানা গেছে রবিবার দুপুর আড়াইটা নাগাদ জলে নেমেছিল সিদ্ধান্ত ও তার বন্ধুরা। তার আগে পাড়ে বসে ওই যুবকদের কেউ কেউ মদ্যপান করেছিলেন বলে স্থানীয়রা জানিয়েছেন তবে সিদ্ধান্ত ও মদ খেয়েছিলেন কিনা তা এখনও পরিষ্কার নয়। এলাকার বাসিন্দারা বলেছেন, ওই যুবকরা জামা কাপড় খুলে জলে নামার মিনিট ১৫পরেই বন্ধুদের চিৎকার ভেসে আসে বাঁচাও বাঁচাও বলে। তখনও ছেলেটার হাত জলের ওপরে ছিল কিন্তু নৌকা নিয়ে তাঁর কাছে পৌঁছাতে না পৌঁছাতেই তলিয়ে যায় সে। তারপর থেকে আর খোঁজ মেলেনি।

- Advertisement -
Latest news
Related news