Friday, April 19, 2024

SSC Scam: SSC দুর্নীতি মামলা! হাইকোর্ট খোঁজ নেওয়া শুরু হতেই আত্মহত্যা পূর্ব মেদিনীপুরের শিক্ষিকার

- Advertisement -spot_imgspot_img

নিজস্ব সংবাদদাতা: স্কুল সার্ভিস কমিশনে শিক্ষক নিয়োগ সংক্রান্ত মামলায় একের পর দুর্নীতি নজরে আসায় শিক্ষক শিক্ষিকাদের নিয়োগ সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে আদালতের তরফে খোঁজ খবর শুরু হয়েছে। কোথাও তালিকার নিচে নাম থেকেও চাকরি, কোথাও আবার সাদা খাতা জমা দিয়ে চাকরি ইত্যাদি নানা অভিযোগ উঠে আসছে। সেই সব ক্ষেত্রে তালিকা ধরে ধরে খোঁজ খবর নিচ্ছে আদালত। সম্প্রতি সেরকমই একটি যাচাই করার তালিকা প্রকাশিত হওয়ার পরই আত্মহত্যা করলেন পূর্ব মেদিনীপুর জেলার এক স্কুল শিক্ষিকা। রবিবার সন্ধ্যায় নিজের ভাড়া বাড়ি থেকে উদ্ধার হয়েছে টুম্পারানি মণ্ডল পড়ুয়া নামে ৩০ বছর বয়সী ওই শিক্ষিকার ঝুলন্ত দেহ। আগের দিন অর্থাৎ শনিবার তিনি স্কুল যাননি বলেই জানা গেছে। আরও জানা গেছে আদালত যে সমস্ত শিক্ষক- শিক্ষিকা সম্পর্কে খোঁজ খবর নিচ্ছেন সেই তালিকার ২৬ নম্বরে নাম ছিল ওই শিক্ষিকার।

আরো খবর আপডেট মোবাইলে পেতে ক্লিক করুন এখানে

জানা গেছে মৃতা নন্দীগ্রামের দেবীপুর মিলন বিদ্যাপীঠের বাংলার শিক্ষিকা ছিলেন। ২০১৬ সালের স্কুল সার্ভিস কমিশনের বিজ্ঞপ্তির ভিত্তিতে নবম-দশম শ্রেণিতে শিক্ষক নিয়োগে টুম্পারানি চাকরি পেয়েছিলেন। ২০১৯ সালে নন্দীগ্রামের ওই হাই স্কুলে তিনি শিক্ষিকা পদে যোগ দেন। নবম-দশমের শিক্ষক নিয়োগে দুর্নীতির যে মামলা চলছে হাই কোর্টে
তারই ভিত্তিতে নবম-দশমের স্কুল শিক্ষকদের তথ্য যাচাই সংক্রান্ত একটি তালিকা কয়েক দিন আগে সমাজমাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে। সেই তালিকায় টুম্পারানির নাম ছিল। টুম্পা যে স্কুলের চাকরি করতেন সেই দেবীপুর মিলন বিদ্যাপীঠের প্রধান শিক্ষক জয়ন্ত অগস্তি সংবাদ মাধ্যমকে বলেন, টুম্পা আমাদের স্কুলে বাংলার সহ শিক্ষিকা ছিলেন। ২০১৯ সালে যোগ দেন। সম্প্রতি বিদ্যালয় পরিদর্শক অফিস থেকে টুম্পার সম্পর্কে কিছু তথ্য জানতে চাওয়া হয়েছিল। তিনি স্কুলে যোগ দিয়েছেন কি না, নিয়মিত আসা যাওয়া করেন নাকি, নিয়মিত মাইনে তোলেন কি না, এইসব তথ্য চাওয়া হয়। আমরা সেসব পাঠিয়ে দিই। তারপর হঠাৎ এরকম ঘটনায় আমরা মর্মাহত।

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, টুম্পারানির বাপের বাড়ি চণ্ডীপুর থানার বুরুন্দা গ্রামে। ২০১৪ সালে ডিহি কাশিমপুর গ্রামের সুবীর পড়ুয়ার সঙ্গে তাঁর বিয়ে হয়। ওই দম্পতি চণ্ডীপুর বাজার সংলগ্ন সরিপুর গ্রামের ভাড়া বাড়িতে থাকতেন । শনিবার বিকেলে সুবীর চণ্ডীপুর বাজারে চা খেতে গিয়েছিলেন। টুম্পারানি বাড়িতে একাই ছিলেন। সন্ধ্যায় সুবীর বাড়ি ফিরে ডাকাডাকি করেও স্ত্রীর সাড়া পাননি। পরে ঘরের মধ্যে তাঁর দেহ ঝুলতে দেখা যায়। চণ্ডীপুর থানার পুলিশ জানিয়েছে, ঘটনার তদন্ত শুরু হয়েছে।

- Advertisement -
Latest news
Related news