Monday, May 20, 2024

Digha: বে-তামিজ পর্যটকদের লাঠি উঁচিয়ে তাড়ালো পুলিশ! দুপুরেই শুনশান দিঘা

- Advertisement -spot_imgspot_img

নিজস্ব সংবাদদাতা : ডান্ডা না দেখলে ঠান্ডা হয়না এমনই কিছু মানুষ ভীড় জমিয়েছিলেন দিঘার সৈকতে। নিষেধের তোয়াক্কা না করেই জমজমাট সমুদ্র আশনাই। বাধ্য হয়ে লাঠি ধরতে হল পুলিশকে। পুলিশের লাঠি উঁচানো রুদ্রমূর্তি দেখে নিমেষেই ফাঁকা হয়ে গেল সমুদ্র সৈকত। নতুন করে করোনা নিষেধাজ্ঞা ও কড়াকড়ি শুরু হওয়ার ১৫ ঘন্টা পর সোমবার সকালে এমনই দৃশ্য নজরে এল সৈকত নগরী দিঘায়। কোনোভাবেই যে পুলিশ বেআদপি বরদাস্ত করবেনা তা বুঝিয়ে দেয় লাঠির ভাষাতেই।

আরো খবর আপডেট মোবাইলে পেতে ক্লিক করুন এখানে

রবিবার বিকাল ৪টায় করোনা ও ওমিক্রন সংক্রমনের উত্তরোত্তর বৃদ্ধির কারণে ১৫ জানুয়ারি পর্যন্ত রাজ্যের সমস্ত পর্যটনকেন্দ্র বন্ধ রাখার কথা ঘোষণা করা হয়েছিল নবান্নের তরফে। তারপরই ওই দিন বিকেলে স্থানীয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে মাইকিং করে জানিয়ে দেওয়া হয় সরকারিভাবে বিধি- নিষেধের কথা। দিঘার পাশাপাশি মন্দারমণি, তাজপুর, শঙ্করপুর পর্যটনকেন্দ্রগুলিতেও পর্যটকদের অনুরোধ করা হয় সৈকত শহর ছাড়ার জন্য। বেশকিছু পর্যটক সন্ধ্যার মুখেই থেকেই ভ্ৰমন বাতিল করে বাড়ি ফিরতে শুরু করেন। সন্ধ্যার মুখে বাস ডিপোগুলিতে টিকিটের জন্য লম্বা ভীড় জমতেও দেখা যায়।

যাঁরা নেহাৎই ফিরতে পারেননি তাঁরা থেকে যান। প্রশাসনও যথেষ্ট নমনীয়তা দেখিয়েছেন। সোমবার সকালেও একাংশ হোটেল খালি করে বাড়ি ফেরার জন্য রেলস্টেশন কিংবা বাসস্ট্যান্ডে চলে যান। কিন্তু একাংশ বেপরোয়া পর্যটক প্রশাসনের নমনীয়তাকে দুর্বলতা ভেবেই চলে যান সমুদ্র পাড়ে, ভিড় জমান গিয়ে সৈকতে। বে-তামিজ এই মানুষদের কড়া ভাষা ছাড়া নিয়ন্ত্রণ করা যাবেনা ধরে নিয়েই আসরে নামে পুলিশ। এরপর আর দিঘায় থাকার সাহস হয়নি কারও। বিকাল ৩টার মধ্যেই কার্যত ফাঁকা হয়ে যায় সৈকত শহর। ২৫শে ডিসেম্বর থেকে জমজমাট হয়ে ওঠা দিঘা এখন পুরোপুরি শুনশান।

সোমবার সকাল থেকেই সৈকত শহরের সমস্ত বিনোদন পার্কের গেটে তালা ঝুলিয়ে দেওয়া হয়। সৈকতে যাতে কেউ ভিড়তে না পারেন তার জন্য স্নানঘাটগুলিতে ব্যারিকেড বসানো হয়েছে পুলিশের তরফে। তাদের কড়া নজরদারিও রয়েছে। একই ভাবে পুলিশের নজরবন্দিতে শংকরপুর, তাজপুর, মন্দারমনি। দিঘা-শঙ্করপুর উন্নয়ন পর্ষদের প্রশাসক মানস কুমার মন্ডল বলেন, ‘সরকারি নির্দেশ মতোই আমরা শহরের সমস্ত পার্ক বন্ধ করে দিয়েছি। সৈকতে পর্যটক সমাগম এবং সমুদ্রস্নান সবেতেই নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। পরবর্তী নির্দেশ না আসা পর্যন্ত এই বিধিই জারি থাকবে।’

- Advertisement -
Latest news
Related news