Monday, May 20, 2024

Malda TMC Firearms: দিদির হাতে পিস্তল, দাদার হাতে বন্দুক! মালদায় আগ্নেয়াস্ত্রর চাষ করছে তৃনমূল, কটাক্ষ বিজেপির

- Advertisement -spot_imgspot_img

নিজস্ব সংবাদদাতা: ক’দিন আগেই হাতে বন্দুক নিয়ে প্রকাশ্য দিনের বেলায় কর্মীদের বন্দুক চালানোর প্রশিক্ষণ দিতে দেখা গেছিল মালদা তৃনমূলের এক নেতাকে। হরিশচন্দ্রপুরের এক অজ গাঁয়ে সেই প্রশিক্ষণ দেখে চোখ কপালে উঠেছিল পুলিশ এবং প্রশাসনের। এবার তৃনমূলের এক নেত্রীর হাতে অত্যাধুনিক পিস্তল দেখে ভিরমি খাওয়ার জোগাড়। মালদহ জেলা মহিলা তৃনমূলের সভাপতি মৃণালিনী মন্ডল মাইতি। শুধু তাই নয় দলের মহিলা শাখার সর্বোচ্চ নেত্রীর পাশাপাশি তিনি আবার পুরাতন মালদহ পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি। নেটমাধ্যমে ভাইরাল হওয়া এই ছবিতে দেখা গেছে নিজের দফতরে চেয়ারে বসে নিজস্বী তুলছেন জেলার প্রথম সারির তৃণমূল নেত্রী। আইনি ক্ষমতার সর্বোচ্চ স্তরে বসে মারাত্মক বেআইনি এই দৃশ্য দেখে দারুন অস্বস্তিতে তৃনমূলের নেতা কর্মীরা। এই ছবির সত্যতা অবশ্য যাচাই করা সম্ভব হয়নি KGP বাংলার পক্ষ থেকে।

আরো খবর আপডেট মোবাইলে পেতে ক্লিক করুন এখানে

বিষয়টি নিয়ে শাসকদল কতটাই বিব্রত তা প্রমাণিত হয় মালদার তৃনমূল নেতা তথা রাজ্য তৃণমূল সাধারণ সম্পাদক কৃষ্ণেন্দুনারায়ণ চৌধুরী কথাতে। চৌধুরী বলেন, ‘‘সরকারি চেয়ারে বসে এই ধরনের কাজ বাঞ্ছনীয় নয়। আগ্নেয়াস্ত্রটি খেলনা না আসল সেটা পুলিশ অনুসন্ধান করে বলবে। তবে, আমি যেটা ছবিতে দেখলাম তাতে মনে হচ্ছে এটা আসল আগ্নেয়াস্ত্র।’’ বিষয়টিকে কেন্দ্র করে আরও একবার
রাজনৈতিক চাপানউতোর তৈরি হয়েছে পুরাতন মালদহে। মালদা বিজেপির জেলা সভাপতি গোবিন্দচন্দ্র মণ্ডল বলেন, ‘‘১১ বছরে গোটা রাজ্যের পাশাপাশি মালদহকেও বারুদের স্তূপে দাঁড় করিয়েছে শাসকদল। ওদের অফিসে এটাই সংস্কৃতি। পিস্তল আছে। খুঁজলে বোমাও পাওয়া যাবে। একে ৪৭-ও পাওয়া যেতে পারে।’’

ঘটনাক্রমে এই মুহুর্তে মালদা জেলা সফরে রয়েছেন দলের সুপ্রিমো তথা রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সেই সময় এই ছবি ভাইরাল হওয়ায় রীতিমতো অস্বস্তিতে তৃণমূল। হতবাক ব্লক আধিকারিকও। এর আগেও একাধিক বার বিতর্কে জড়িয়েছেন পুরাতন মালদহ পঞ্চায়েত সমিতি তথা মহিলা তৃণমূল কংগ্রেসের জেলা সভাপতি মৃণালিনী মণ্ডল মাইতি। যদিও এই বিষয়ে বার বার মিতালী মণ্ডল মাইতি-কে ফোন করা হলেও তার কোনও প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি।

উল্লেখ্য কিছুদিন আগেই হরিশ্চন্দ্রপুর থানা এলাকার এক পঞ্চায়েত প্রধানের দেওর আগ্নেয়াস্ত্র প্রশিক্ষণ দিচ্ছিলেন। সেই ভিডিও ভাইরাল হতে দেখা যায়
দিনেদুপুরে গ্রামের বুকে ‘গুলি চালাচ্ছেন’ স্বয়ং তৃণমূল কংগ্রেসের গ্রাম পঞ্চায়েত প্রধানের দেওর তথা স্থানীয় তৃণমূল কংগ্রেস নেতা। পাশ থেকে আবার উৎসাহ দিচ্ছেন অনেকেই। তৃণমূল কংগ্রেস নেতা  ‘শিখিয়ে দিচ্ছেন’ কেমন করে চালাতে হয় বন্দুক। সেই ভিডিও ভাইরাল সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হওয়ার পরই মালদার হরিশ্চন্দ্রপুর জুড়ে শুরু হয়েছে চাঞ্চল্য। এরপরই মালদার হরিশ্চন্দ্রপুর-২ ব্লকের মালিওর-২ গ্রাম পঞ্চায়েতের তৃণমূল কংগ্রেসের প্রধান তোরিনা খাতুনের দেওর তৃনমূল নেতা আরজাউল হককে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। এখন এই নেত্রীকে নিয়ে পুলিশ কী করে সেটাই এখন দেখার। বিজেপির অভিযোগ গোটা মালদা জুড়েই আগ্নেয়াস্ত্রর চাষ করেছে তৃনমূল। একের পর এক এই ঘটনায় সেটা আরও একবার প্রমাণিত হল।

- Advertisement -
Latest news
Related news