Wednesday, May 22, 2024

Dilip Ghosh: আমাদের লোকেরাই জিতিয়েছে তৃনমূলকে! অবশেষে ‘বিজেমূল’ তত্ত্বে সায় দিলীপ ঘোষের

After returning of Rajiv Banerjee in his old house TMC in Tripura on Sunday, Dilip Ghosh stood in Kharagpur and posted on Facebook that there were still many traitors in the party. It was thought that he was probably the only one in this group of traitors He explained to the people from the TMC but on Monday he made it clear to the journalists that they (who came to the BJP from the grassroots) have but we (already the BJP) also have a lot of people who voted for the TMC from the party. Whether Dilip Ghosh says it or not, the results of the elections proved that the BJP people in the whole of South Bengal, including Jangalmahal, voted for the TMC. In Bankura, Purulia, Jhargram and Midnapore, where the BJP was undefeated in the Lok Sabha, the BJP had to return empty-handed. Standing in that place, this confession of Dilip Ghosh is just an official recognition. And under that recognition, the BJP is also a TMC entity.

- Advertisement -spot_imgspot_img

নিজস্ব সংবাদদাতা: ‘যে বিজেপি সেই তৃনমূল’ বিধানসভা নির্বাচনের আগে সিপিএমের এই প্রচারের সারবত্তা প্রায় স্বীকারই করে নিলেন সদ্য প্রাক্তন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দীলিপ ঘোষ। সোমবার মেদিনীপুর শহরে দলীয়কর্মীদের দ্বারা আহুত এক বিজয়া সম্মিলনী অনুষ্ঠানে আমন্ত্রিত হয়ে এসে এমনটাই জানিয়ে দিলেন মেদিনীপুর সাংসদ।

আরো খবর আপডেট মোবাইলে পেতে ক্লিক করুন এখানে

রবিবার বিজেপির ঘর ছেড়ে ফের তৃনমূলে ফিরে গিয়েছেন রাজ্যের প্রাক্তনমন্ত্রী রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়, এর আগে একে একে ঘর ওয়াপিসিতে গেছেন মুকুল রায় সহ আরও অনেকে। শুধু তাই নয় খোদ বিজেপির ঘর থেকে চলে গিয়েছেন সাংসদ বাবুল সুপ্রিয় সহ একগুচ্ছ বিধায়ক। বিধানসভা নির্বাচনের কয়েকমাস পরে দাঁড়িয়ে দিলীপ ঘোষ তথা রাজ্য বিজেপির এই উপলব্ধি তাই সিপিএমের ‘তৃনমূল বিজেপি ভাই ভাই’ শ্লোগানকেই মান্যতা দিয়ে ফেলল।

রবিবার ত্রিপুরায় রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়ের ঘরে ফেরার পরই খড়গপুরে দাঁড়িয়ে দীলিপ ঘোষ ফেসবুকে পোষ্ট করে বলেছিলেন, দলে এখনও অনেকে বিশ্বাসঘাতক রয়ে গেছে। ভাবা হয়েছিল এই বিশ্বাসঘাতকের দলে তিনি বোধহয় শুধু
তৃনমূল থেকে আসা লোকেদের বুঝিয়েছেন কিন্তু সোমবার সাংবাদিকদের কাছে তিনি পরিস্কার করে দেন, ওরাতো (তৃনমূল থেকে বিজেপিতে আসা) আমাদেরও (আগে থেকেই বিজেপি ) অনেক লোক রয়েছে যারা দলে থেকে তৃনমূলের হয়ে ভোট করিয়েছে।

দিলীপ ঘোষ বলুন আর নাই বলুন জঙ্গলমহল সহ সমগ্র দক্ষিনবঙ্গেই যে বিজেপির লোকেরা তৃণমূলে ভোট দিয়েছে তা নির্বাচনের ফলাফলেই প্রমান হয়ে গেছিল। বাঁকুড়া, পুরুলিয়া, ঝাড়গ্রাম, মেদিনীপুরে যেখানে বিজেপি লোকসভায় অপ্রতিহত ছিল সেখানে কার্যত শূন্য হাতে ফিরতে হয়েছে বিজেপিকে। সেই জায়গায় দাঁড়িয়ে দীলিপ ঘোষের এই স্বীকারোক্তি একটি আনুষ্ঠানিক স্বীকৃতি মাত্র। আর সেই স্বীকৃতি তলায় বিজেপি তৃনমূলের আঁতাতেরও বটে।

বিজেপির প্রাক্তন সভাপতি সাংবাদিকের সামনে দাঁড়িয়ে যখন এই উপলব্ধি ব্যক্ত করেছেন তখন তাঁর পাশেই রয়েছেন বিজেপির সদ্য মনোনীত রাজ্য সভাপতি সুকান্ত মজুমদার। ঘোষের এই বক্তব্যকে কার্যত মাথা নেড়ে সমর্থন জানিয়েছেন তিনি। যার অর্থ বিজেপির মধ্যে থেকে তৃনমূলের হয়ে কাজ করার তত্ত্ব স্বীকার করে নিয়েছেন তিনি এবং পশ্চিমবঙ্গ বিজেপিও।

সেই বিশ্বাসঘাতকের দল যে এখনও দলের মধ্যেই রয়েছে এবং তারা যে আদি বিজেপিরই লোক তা স্বীকার করেই ক্ষান্ত হননি ঘোষ। সঙ্গে এটাও বলেছেন যে, তাদের খোঁজ শুরু হয়েছে। একে একে সবাইকে চিহ্নিত করা হবে। দলীয় অন্তর্ঘাত নিয়ে চিন্তিত বিজেপিকে সম্ভবতঃ আরও দুশ্চিন্তায় ফেলেছে আগত পৌর নির্বাচন। আর সে কারণেই বিজেপি সেজে থাকা ছুপা তৃণমূলীদের দ্রুত চিহ্নিত করতে উঠে পড়ে লেগেছে দীলিপ ঘোষরা।

- Advertisement -
Latest news
Related news