Tuesday, April 16, 2024

Nupur Sharma Row: শুক্রবারও অবরোধ, আগুনে উত্তপ্ত হাওড়া! সোমবার সকাল অবধি বন্ধ ইন্টারনেট পরিষেবা, অবরোধের পেছনে আলকায়দা, NIA তদন্ত চেয়ে মামলা হাইকোর্টে

- Advertisement -spot_imgspot_img

নিজস্ব সংবাদদাতা: দিল্লির বিজেপি নেত্রীর পয়গম্বর সম্পর্কিত বিতর্কিত মন্তব্যের জেরে বৃহস্পতিবারের পর শুক্রবারও রনক্ষেত্র হয়ে উঠল হাওড়া। অবরোধ আর বিক্ষোভের নামে বেনজির বিশৃঙ্খলা দেখল হাওড়া (Howrah) জেলার বিভিন্ন এলাকা। বৃহস্পতিবারের পর শুক্রবারও ঘন্টার পর ঘন্টা পথ অবরোধ চলল। বিশেষ করে অগ্নিগর্ভ পরিস্থিতি দেখা গিয়েছে উলুবেড়িয়া, ধূলাগড় সহ বেশ কয়েকটি জায়গায়। বৃহস্পতিবার পুলিশ নিশ্চুপ ছিল কিন্তু শুক্রবার অবরোধ হঠাতে পুলিশ সক্রিয় হতেই আগুন লাগানো হল পুলিশের গাড়ি, কিয়স্কে আগুন লাগানো হল। বহু জায়গায় আগুনে পুড়ে ছাই হয়ে যেতে দেখা গিয়েছে জাতীয় সড়ক ও রাস্তার পাশে থাকা গরিব ব্যবসায়ীদের দোকানও। বিস্তীর্ণ এলাকা জুড়ে মানুষের সম্পত্তি নষ্ট হতে দেখা গিয়েছে।

আরো খবর আপডেট মোবাইলে পেতে ক্লিক করুন এখানে

এরপরই শুক্রবার সন্ধ্যা থেকে আগামী সোমবার সকাল ছ’টা পর্যন্ত হাওড়ায় ইন্টারনেট পরিষেবা বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নেয় নবান্ন। একটি বিবৃতি দিয়ে স্বরাষ্ট্র দফতরের অতিরিক্ত মুখ্যসচিব জানিয়েছেন, হাওড়ার সাম্প্রতিক অস্থিরতা সামাল দিতেই এই পদক্ষেপ। রাজ্য পুলিশের এডিজি এবং আইজি (আইন-শৃঙ্খলা)-র তরফে এ ব্যাপারে অনুরোধ করা হয়েছিল। তার জেরেই এই সিদ্ধান্ত। অতিরিক্ত মুখ্যসচিব জানিয়েছেন, হাওড়া সিটি পুলিশ এবং হাওড়া রুরাল পুলিশের আওতাভুক্ত জেলার সমস্ত এলাকাতেই এই সিদ্ধান্ত বলবৎ হবে। শুক্রবার সন্ধ্যা সাতটার সময় এই নির্দেশ দেওয়া হয়েছে রাজ্যের তরফে। নির্দেশে স্পষ্ট বলা হয়েছে, ইন্টারনেট পরিষেবা বন্ধের প্রক্রিয়া অবিলম্বে চালু হবে।

উল্লেখ্য পয়গম্বরকে নিয়ে বিরূপ মন্তব্যের বিরোধিতায় অবরোধকারীদের পথ অবরোধের ফলে হাওড়ার সলপে কোনা এক্সপ্রেসওয়েতে ৮ থেকে ৯ কিমি লম্বা হয়ে দাঁড়িয়ে ছিল গাড়ির সারি। প্রচন্ড গরমে মানুষকে ঠায় গাড়ির মধ্যে বসে থাকতে হয়েছে ঘন্টার পর ঘন্টা। বহু বৃদ্ধ ও অসুস্থ মানুষের বাইরে নেমে প্রস্রাব করতে যাওয়ার মত অবস্থা ছিলনা। অন্যদিকে শুধু জাতীয় সড়কেই অবরোধই নয়, শুক্রবার অবরোধের মুখে পড়তে হয়েছে দক্ষিণপূর্ব রেলের খড়গপুর-হাওড়া শাখার ট্রেনগুলিকেও। এদিন চেঙ্গাইলে শুরু হয় রেল অবরোধ। যার জেরে হাওড়া-খড়গপুর শাখায় বন্ধ হয়ে যায় ট্রেন চলাচল। রেল অবরোধের জেরে ৪টি দূরপাল্লার ট্রেন বাতিল। তীব্র গরমের মধ্যে অবরোধে আটকে পড়ে চরম ভোগান্তির শিকার হতে হয় বহু মানুষকে। পশ্চিম মেদিনীপুরের ফুল ও ছানা ব্যবসায়ীদের লক্ষ লক্ষ টাকা ক্ষতি হয়েছে বলে ব্যবসায়ীরা দাবি করেছেন।

ওদিকে  হাওড়ায় অবরোধ তুলতে গেলে পুলিশকে অবরোধকারীদের আক্রমনের মুখে পড়তে হয়েছে। পুলিশকে লক্ষ্য করে ইটবৃষ্টির পাশাপাশি বোমাও ছোঁড়া হয়েছে বলে অভিযোগ । ইটের আঘাতে তাতে বেশ কয়েকজন পুলিশকর্মী জখম হন। এরপরই
বিক্ষোভকারীদের ছত্রভঙ্গ করতে কাঁদানে গ্যাসের শেল ছোড়ে পুলিশ। সেখানে র‌্যাফ নামানো হয়েছে। এদিন ডোমজুড় থানাতেও হামলা চালানো হয় বলে অভিযোগ।

পাঁচলায় ৬ নম্বর জাতীয় সড়ক অবরোধ চালানোর পাশাপাশি বিক্ষোভকারীরা পাঁচলায় বিজেপি পার্টি অফিসেও হামলা চালিয়েছে বলে দাবি করেছে বিজেপি। বিজেপি আরও অভিযোগ করেছে উলুবেড়িয়া মনসাতলায় বিজেপি গ্রামীণ অফিস ভাঙচুর করে অগ্নিসংযোগ করা হয়েছে বলে অভিযোগ ওঠে। বিজেপি কর্মীদের বাড়িতে ভাঙচুর ও লুটপাট করা হয়েছে বলেও অভিযোগ করা হয়।

বিরোধী দলনেতা বিজেপির শুভেন্দু অধিকারী (Suvendu Adhikari)। সেনা নামিয়ে মানুষের জীবন-সম্পত্তি রক্ষার আবেদন জানিয়ে রাজ্যপালকে মেল করেছেন তিনি। শুভেন্দু বলেন, “এই মুহূর্তে উলুবেড়িয়ার নিমদিঘি থেকে পাঁচলা পর্যন্ত কয়েকশো গাড়ি ভাঙা হচ্ছে, পোড়ানো হচ্ছে। তাতে নিরপরাধ, বিভিন্ন সম্প্রদায়ের মানুষ আছে। গোটা রাজ্যের আইন-শৃঙ্খলা হাতের বাইরে চলে গেছে। আমি বিরোধী দলনেতা হিসাবে সকাল থেকে রাজ্যপালকে একাধিক ভিডিও, ট্যুইট করেছি। মেলেও সেনা নামিয়ে মানুষের জীবন-সম্পত্তি রক্ষার আবেদন জানিয়েছি রাজ্যপালকে।”

অন্যদিকে প্রতিবাদ ও বিক্ষোভের পদ্ধতি নিয়ে অসন্তোষ প্রকাশ করে রাজ্যের মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম বলেন, “কিছু মানুষ অন্যায়ভাবে এটা করছে। তার কারণ, কোনও ধর্ম মানুষকে কষ্ট দিয়ে হয় না। নিশ্চিতভাবে নূপুর শর্মার মন্তব্যের নিন্দা করেছেন মুখ্যমন্ত্রী। এটা নিয়ে রাস্তায় নেমে মানুষের অসুবিধা করাটা অন্যায়। প্রতিবাদ করো, প্রয়োজনের সংগঠিতভাবে কোর্টে যাওয়া যেতে পারে, কিন্তু গুন্ডাগিরি করলে এখানে বিজেপি বাড়বে। ”

এদিকে গুজব ছড়ানো ও ভুল তথ্য পরিবেশন আটকানোর জন্যই ইন্টারনেট পরিষেবা বন্ধের সিদ্ধান্ত বলে নবান্ন সূত্রে জানানো হয়েছে। মুখ্যসচিব জানিয়েছেন, পরিস্থিতি সামলাতেই আপাতত সোমবার সকাল পর্যন্ত ইন্টারনেট বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত। অন্যদিকে হাওড়ার অঙ্কুরহাটিতে বৃহস্পতিবার যে অবরোধ হয়েছিল তার পিছনে রয়েছে জঙ্গি সংগঠন আল কায়দার মদত। এই অভিযোগ তুলে NIA তদন্তের দাবিতে কলকাতা হাইকোর্টে দায়ের হল মামলা। মামলাটি গ্রহণ করেছে আদালত। বিজেপি নেত্রীর মন্তব্যের জেরে ভারতের ৪ শহরে জঙ্গি হামলার হুমকি দিয়েছে আল কায়দা। সেই হুমকি চিঠিকে হাতিয়ার করে মামলাকারী দেবদত্ত মাজির দাবি, বৃহস্পতিবারের অবরোধের পিছনে রয়েছে জঙ্গিদের মদত। তাই এই অবরোধের NIA তদন্ত হওয়া উচিত।

- Advertisement -
Latest news
Related news