Sunday, April 14, 2024

Wife Murdered: অভাব থেকেই অশান্তি! মহিষাদলে স্ত্রীকে খুন করে থানায় আত্মসমর্পণ স্বামীর

- Advertisement -spot_imgspot_img

নিজস্ব সংবাদদাতা: নুন আনতে পান্তা ফুরানোর সংসার টানতেন দুজনেই কিন্তু কুলাতো না কিছুতেই। দিনভর খাটাখাটনির পরেও দুই সন্তানকে নিয়ে চলেনা সংসার। টালমাটাল সংসারে তাই মাথার ঠিক থাকেনা কারুই। স্ত্রীকে স্বামীকে দোষ দেয় ঠিক মত সংসার চালাতে পারেনা বলে আর স্বামীকে স্ত্রী দুষে যথেষ্ট উপার্জন করেনা বলে। নুন আর লঙ্কা, তেল আর চালের লড়াইয়ে উবে যায় দাম্পত্য, উবে যায় প্রেম! দিনভর শুধুই অশান্তি। নিম্নবিত্ত বাংলার পরিবারে পরিবারে এই নিত্য ছবিই ছিল পূর্ব মেদিনীপুরের মহিষাদল থানার অন্তর্গত কাঞ্চনপুর জলপাই গ্রামের দাস পরিবারেও। কিন্তু পরিণতি হল মর্মান্তিক। ঝগড়ার সময় স্বামী বাটাম দিয়ে মেরেই বসলেন স্ত্রীকে। ঘটনাস্থলেই মৃত্যু হল স্ত্রীর।
মৃতদেহ পুকুরে ফেলে থানায় গিয়ে আত্মসমর্পণ করলেন স্বামী।

আরো খবর আপডেট মোবাইলে পেতে ক্লিক করুন এখানে

রবিবার সকালে এরকমই এক মর্মান্তিক ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়ালো মহিষাদল ব্লকের ইটামগরা ১ গ্রাম-পঞ্চায়েতের কাঞ্চনপুর জলপাই গ্রামে। পুলিশ সূত্রে জানা গেছে স্বামীর মারে মৃত ওই স্ত্রীর নাম তনুশ্রী দাস (৩৫)। স্বামী অমল দাসকে গ্রেপ্তার করেছে মহিষাদল থানার পুলিশ। যাদের টিকিয়ে রাখার জন্য এত লড়াই, এত খাটাখাটুনি আর অশান্তি, অমল আর তনুশ্রীর ১২ বছরের ছেলে ও ৪ বছরের মেয়েটির চোখ জুড়ে এখন শুধুই অনিশ্চয়তা, শুধুই বিষণ্নতা আর হাহাকার। মা মৃত, বাবা জেলে! সৌজন্যে দারিদ্র।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে বছর ১৫ বিবাহিত জীবন অমল আর তনুশ্রীর। এক সময়ে আর পাঁচটি দম্পত্তির মত সুখের জীবন কাটিয়েছেন তাঁরা। একে অপরের ভালোবাসায় গলে গেছেন। গায়ে গতরে খেটে দিনমজুরি করেই হেসেখেলে কাটিয়েছেন দুজনে। কিন্তু ধিরে ধিরে দারিদ্র্য গেড়ে বসেছে সংসারে। তা থেকে বেরিয়ে আসার জন্য তনুশ্রী একটি নাচের দলে কাজ নিয়েছেন। তারপর লকডাউনে সব কিছু তছনছ হয়ে গেছে। দিনের পর দিন কাজ পাননি দুজনের কেউ। সেই সময় ঘরে দু’বছরের শিশুকন্যা। অভাবের জন্ম দিয়েছে পরিস্থিতি আর সম্পর্ক তিক্ত থেকে তিক্ততর হয়েছে দুজনের। পরে দুনিয়া নর্মাল হয়েছে কিন্তু সংসার নর্মাল হয়নি আর নর্মাল হয়নি সম্পর্ক। প্রতিবেশীরা জানিয়েছেন সংসারে অভাব-অনটনের জন্য তাঁদের মধ্যে বনিবনা হত না। নিত্যদিন অশান্তি হত। অমল প্রায়ই স্ত্রীকে মারধরও করতেন বলে অভিযোগ।

রবিবার সকালেও অশান্তি চরমে ওঠে। দুজনের মধ্যে চূড়ান্ত বচসার মধ্যেই অমল তাঁর স্ত্রীর মাথায় বাটাম দিয়ে আঘাত করে ফেলেন। সেখানেই পড়ে যান তনুশ্রী। এরপর স্ত্রীর মৃতদেহ পুকুরে ফেলে বাড়ি থেকে বেরিয়ে পালিয়ে যান। স্থানীয়দের থেকে খবর পেয়ে পুকুর থেকে তনুশ্রীর মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তে পাঠায় পুলিশ। পরে রাগ পড়ে যায় অমলের। বুঝতে পারেন কী সর্বনাশ করেছেন। দুপুরে মহিষাদল থানায় গিয়ে জানান, স্ত্রীকে খুন করেছেন তিনিই। পুলিশও জানিয়েছে, পারিবারিক অশান্তির জেরে এই খুন বলে মনে করা হচ্ছে। ঘটনার তদন্ত শুরু হয়েছে। মহিলার বাপের বাড়ির লোককে খবর দেওয়া হয়েছে।

- Advertisement -
Latest news
Related news