Tuesday, June 25, 2024

Midnapore: ফের টোটো বনাম অটো চালকদের মধ্যে তুলকালাম মেদিনীপুর শহর! মান রাখি না কুল রাখি অবস্থা শাসকদলের

- Advertisement -spot_imgspot_img

নিজস্ব সংবাদদাতা: নির্বাচন মিটে যাওয়ার পুরানো ফোঁড়া যেন আবার মাথা চাড়া দিয়ে উঠছে মেদিনীপুর শহরে। আবারও টোটো বনাম অটো চালকদের মধ্যে সংঘর্ষের পরিবেশ তৈরি হচ্ছে আর যার জেরে আগামী দিনে যাত্রী ভোগান্তি অনিবার্য পরিণতিতে পৌঁছাতে চলেছে। বিধানসভা নির্বাচনের আগে দফায় দফায় এমন গন্ডগোল মায় সংঘর্ষ অবধি দেখা গিয়েছে মেদিনীপুর শহরে। নির্বাচনের আগে দু’পক্ষকেই বুঝিয়ে সুজিয়ে সমস্যা কিছুটা প্রশমিত করেছিল শাসকদল। কিন্তু নির্বাচন মিটতেই সেই সমস্যা আমার মাথা চাড়া দিয়ে উঠল। রবিবার ছুটির দিনে সকাল সকাল এমনই দ্বৈরথের সম্মুখীন হতে দেখা গেল মেদিনীপুর শহরে প্রবেশ মুখে ধর্মাতে।

আরো খবর আপডেট মোবাইলে পেতে ক্লিক করুন এখানে

জানা গেছে এদিন সকালে ৮টা নাগাদ যাত্রী তোলাকে কেন্দ্র করে তীব্র অসন্তোষ তৈরি হয় টোটো বনাম অটো চালকদের মধ্যে। দুই পক্ষের মধ্যে তীব্র বচসা ও বাদানুবাদ এমন কী হাতাহাতি হওয়ার উপক্রম তৈরি হয়। ঘটনাকে ঘিরে উত্তেজনা ছড়ায় যখন একদল ৬০নম্বর জাতীয় সড়কের ওপর ধর্মাতে পথ অবরোধ শুরু করে। সেই অবরোধের জেরে তীব্র যানজট তৈরি হয় মেদিনীপুর শহরের প্রবেশ পথ তথা রাজ্য সড়কের ওপর। অবরোধ তুলতে গেলে পুলিশের সঙ্গে বচসাও বাঁধে, পরে বিশাল পুলিশবাহিনী কে নিয়ে গিয়ে অবরোধ তোলা হয়। কয়েকজন অবরোধকারীকে আটক করে কোতোয়ালী থানার পুলিশ।

অটো চালকরা সংবাদমাধ্যমের কাছে দাবি করেন, ‘আমরা প্রশাসনের নিয়ম মেনে আমরা নির্দিষ্ট জায়গায়, প্রশাসনের নির্দিষ্ট করে দেওয়া জায়গাতেই অপেক্ষা করি। এবং সেখান থেকেই যাত্রী তুলে থাকি কিন্তু টোটো চালকরা কোনও নিয়ম কানুনই নিয তারা মানে না তারা এগিয়ে গিয়ে যাত্রীদের তুলে নেয়। আর এর ফলে আমরা নির্দিষ্ট স্ট্যান্ডে অপেক্ষা করে বসে থাকি তাতে যাত্রী পাচ্ছি না। ফলে আমাদের সংসার চালাতে হিমশিম খেতে হচ্ছে, তেলের দাম ও বারেবার বেড়েই যাচ্ছে। নুন আনতে পান্তা ফুরে যায়, প্রশাসন এই ব্যাপারে কোন রকম ব্যবস্থা না করলে। আমরা রেজিস্ট্রেশন ফি ও পরিবহন দপ্তরের যে ট্যাক্স দিয়ে থাকি, সে সব ফেরত দিক সরকার।’

অন্যদিকে টোটো চালকদের বক্তব্য, ” ধর্মার মোড়ে বাস থেকে যাত্রীর নামার পর আমরা যাত্রীদের নিয়ে বের হলে অটো চালকরা রাস্তায় যেখানে সেখানে টোটো আটকে সেখান থেকে যাত্রীদের নামিয়ে দিচ্ছে। অটো চালকরা টোটো ওপর হামলা করছে, তার সঙ্গে অটো চালকরা মারধর করছে তাদের ওপর বলে অভিযোগ। অটো ও টোটো সংঘর্ষের জন্য সাধারণ যাত্রীকে সমস্যায় পড়তে হয়।” সব মিলিয়ে দাবি আর পাল্টা দাবিকে ঘিরে সরগরম টোটো বনাম অটো বিতর্ক। এদিকে দু’পক্ষই আবার শাসকদল নিয়ন্ত্রিত ইউনিয়নের অধীনে হওয়ায় কেউ কারও কাছে দমতে রাজি নয়।

এদিন দু’পক্ষই দাবি করেছে নির্বাচনের প্রাক্কালে মেদিনীপুর শহরের তৃনমূল নেতারা প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন ভোট মিটে গেলে বিষয়টি নিয়ে দুপক্ষকে নিয়ে বসে একটি সুষ্ঠ মীমাংসা করবেন বলে কথা দিয়েছিলেন। সেই মত আপাত বিবাদ থামিয়ে দু’পক্ষই জি জান খাটিয়ে লড়েছেন ভোটে। কিন্তু এখন কেউ বিষয়টি নিয়ে মাথা ঘামাচ্ছেননা। অন্যদিকে মেদিনীপুর শহরের এক তৃনমূল শ্রমিক ইউনিয়নের নেতার বক্তব্য,এ সমস্যা সহজে মেটার নয়। বহুবার দু’পক্ষকে নিয়ে বসা হয়েছে। এমনকি প্রশাসনও দুই পক্ষকে সমাধান সূত্র দিয়েছিল। বলা হয়েছিল টোটো রিংরোডে উঠবেনা আর অটো শহরের মধ্যে অবস্থিত পাড়ার গলির মধ্যে যাত্রী নিয়ে যাবেনা। কিন্তু কেউই কোনও নিয়ম মানেনা। দুপক্ষের কেউই এক ইঞ্চি জায়গা ছাড়তে চায়না তো সমস্যা মিটবে কী করে?’

- Advertisement -
Latest news
Related news