Tuesday, June 25, 2024

Kharagpur Midnapore Jharagram Weather:

Batting has started again in winter. It is as if winter has come down to the ground with the bat in his strong hand to hit sixes. Kharagpur, Medinipur and neighboring Jangalmahal are experiencing bone-chilling cold on today. According to the meteorological department of Vidyasagar University, the mercury has dropped by 3 degrees in the last 48 hours. The region had a low of 12.4 degrees Celsius on Saturday and 9.7 degrees Celsius on Monday. However, meteorologists said that the temperature in South Bengal, including Kolkata, may gradually rise from Wednesday. The increase in the relative humidity of the water vapor in the air is also predicted to lead to the disappearance of the cold in Kankan and the formation of uncomfortable weather during the day. The meteorologists also said that Kankan will not feel cold as the north wind is obstructed due to the westerly winds.

- Advertisement -spot_imgspot_img

নিজস্ব সংবাদদাতা: ফের শুরু হয়েছে শীতের দাপুটে ব্যাটিং। ফের যেন ছক্কা হাঁকাতে শক্ত হাতে ব্যাট নিয়ে ময়দানে নেমেছে শীত। সোমবার হাড় কাঁপানো শীত অনুভব করছে খড়গপুর মেদিনীপুর এবং সঙ্গী জঙ্গলমহল। সমগ্র ঝাড়গ্রাম এবং পশ্চিম মেদিনীপুরের জঙ্গলমহলের গড়বেতা, শালবনী, গোয়ালতোড় ছাড়াও তীব্র শীতে কাঁপছে ঘাটাল, চন্দ্রকোনাও। হাড় কাঁপানো শীত অনুভূত হচ্ছে দাসপুর, ডেবরায়। কেলেঘাই উপত্যকার পিংলা, সবং, নারায়নগড় কিংবা সুবর্নরেখার উপত্যকা কেশিয়াড়ী, দাঁতন, মোহনপুরেও জমজমাট শীতের অনুভূতি। বিদ্যাসাগর বিশ্ববিদ্যালয়ের আবহাওয়া উদ্যান সূত্রে জানা গেছে গত ৪৮ ঘন্টায় পারদের পতন ঘটেছে ৩ ডিগ্রী। শনিবার এই অঞ্চলের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ১২.৪ ডিগ্রী সেলসিয়াস, সোমবার তা হয়েছে ৯.৭ডিগ্রী সেলসিয়াস।

আরো খবর আপডেট মোবাইলে পেতে ক্লিক করুন এখানে

খড়গপুর কিংবা মেদিনীপুর সংলগ্ন অঞ্চলে এই তাপমাত্রা স্বাভাবিকের চেয়ে ২ ডিগ্রী কম। যদিও জানুয়ারির চতুর্থ দিনে শীতের পারদ আরও নামার কথা ছিল সম্ভবতঃ ঘন কুয়াশার কারণে তা কিছুটা বাধাপ্রাপ্ত হচ্ছে। ভোর থেকেই ঘন কুয়াশার চাদরে মোড়া সমগ্র পশ্চিম, পূর্ব এবং ঝাড়গ্রাম জেলা। দৃশ্যমানতা কম থাকায় ভোরে ব্যাহত হয়েছে ট্রেন চলাচল, ফলে বেশ কয়েকটি লোকাল ট্রেন দেরিতে চলছে। জাতীয় এবং রাজ্য সড়কে থমকে গিয়েছে যানচলাচল। তাপমাত্রার খানিকটা কমার পাশাপাশি মঙ্গলবার ভোর থেকেই ঘন কুয়াশার জেরে কমেছে দৃশ্যমানতা। আলিপুর আবহাওয়া দপ্তর জানিয়েছে  মঙ্গলবার রাজ্য জুড়েই শীতের এই দাপট চলছে।

এদিকে আবহবিদরা জানিয়েছেন, বুধবার থেকেই কলকাতা-সহ গোটা দক্ষিণবঙ্গে ধীরে ধীরে তাপমাত্রা ঊর্ধ্বমুখী হতে পারে। বাতাসের জলীয় বাষ্পে আপেক্ষিক আর্দ্রতার পরিমাণ বাড়ার ফলে কনকনে ঠান্ডার আমেজ উধাও হয়ে দিনের বেলা অস্বস্তিকর আবহাওয়া তৈরি হতে পারে বলেও পূর্বাভাস। আবহবিদরা আরও জানিয়েছেন, পশ্চিমী ঝঞ্ঝার জেরে উত্তুরে হাওয়া বাধা পাওয়ায় কনকনে ঠান্ডা অনুভূত হবে না। সপ্তাহান্তে শীতের দাপট আরও কমতে পারে বলেও মনে করেছে দিল্লীর মৌসম ভবন।

মৌসম ভবন জানিয়েছে, সোমবার একটি ঝঞ্ঝা কাশ্মীরের উপর এসেছে। এর জেরে পাহাড়ি এলাকায় তুষারপাত এবং সমতলে বৃষ্টি হবে। তার পরে সেটি মধ্য ভারতের দিকে বয়ে আসবে। প্রথম ঝঞ্ঝাটি উত্তর-পশ্চিম ভারত থেকে বিদায় না নিতেই বৃহস্পতিবার নাগাদ দ্বিতীয় ঝঞ্ঝাটি উত্তর-পশ্চিম ভারতে ঢুকবে। চলতি সপ্তাহের শেষে সেটি মধ্য ভারতের দিকে বয়ে আসবে। এর ফলে উত্তর-পশ্চিম ভারতে তুষারপাত ও বৃষ্টি হলেও কনকনে ঠান্ডা মিলবে না। বাধা পাবে উত্তুরে বাতাসও। তার ফলেই চলতি সপ্তাহের মাঝামাঝি থেকে গাঙ্গেয় বঙ্গের পারদ মাথাচাড়া দেবে। সপ্তাহান্তে খড়গপুর মেদিনীপুরের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ১৯ ডিগ্রি সেলসিয়াসের কাছে উঠে যেতে পারে বলে আলিপুর হাওয়া অফিসের পূর্বাভাস। অন্য দিকে, সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ২৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস ছাড়িয়ে যেতে পারে।

যদিও এই ঝঞ্জার প্রভাব খুব বেশিদিন স্থায়ী হবেনা। সপ্তাহান্তে শীত কমলেও আবহবিদদের অনেকের মতে, দু’টি ঝঞ্ঝার প্রভাব কেটে গেলে জানুয়ারির দ্বিতীয় সপ্তাহের শেষ দিকে উত্তর-পশ্চিম ভারত থেকে পূর্ব ভারতের দিকে বয়ে আসতে পারে প্রবল কনকনে উত্তুরে বাতাস। সে কারণে অনেকটাই নামতে পারে তাপমাত্রার পারদ। ফলে পৌষ সংক্রান্তির সময় রাজ্য জুড়েই জাঁকিয়ে বসতে পারে শীত। ফলে পিঠেপুলি আর জমজমাট চড়ুইভাতের আসর বসানো যাবে দিব্যি।

- Advertisement -
Latest news
Related news