Sunday, April 14, 2024

Kharagpur Shootout: খড়গপুর শহরের শান্তি ভাঙল গুলির ফোয়ারা! দুস্কৃতীদের একাধিক গুলিতে নিহত গুলিবিদ্ধ তৃনমূল কর্মী ও শ্রীনু নাইডু ঘনিষ্ঠ প্রসাদ রাও

As if the misdeeds were taking place for some time, the activities of the police were also at their peak. As a result, there was some peace in the middle of the city but that peace was broken on Monday. A young man was shot dead in the New Settlement area of ​​Kharagpur town on Monday night. The initial guess of the police is that the young man was shot dead from the gang rivalry. It was initially estimated that he had received four to five shots being done. The miscreants who came on a motorbike practically shot at the body of the deceased.Sources said the deceased was identified as Prasad Rao. Prasad, 40, was once known as a close associate of Kharagpur mafia don Srinu Naidu. Prasad also joined the Trinamool Congress in 2016 along with Sreenu. After Srinu's assassination that year, his gang split into several factions. Police are investigating whether anyone from that group is behind the murder or any other group. The assailants left the area after firing at Prasad. Upon receiving the news, the police of Kharagpur Town Police Station rushed to the spot. Prasad was rushed to Khargpur Railway Hospital in critical condition. But could not be saved until the end.

- Advertisement -spot_imgspot_img

নিজস্ব সংবাদদাতা: যেন কিছুদিন জিরিয়ে নিচ্ছিল দুষ্কৃতিরা, পুলিশের তৎপরতাও ছিল তুঙ্গে। ফলে মাঝখানে কিছুটা শান্তি ছিল শহরে কিন্তু সোমবার ভেঙে গেল সেই শান্তি। সোমবার রাতে খড়গপুর শহরের নিউ সেটেলমেন্ট এলাকায় গুলিবিদ্ধ হয়ে মৃত্যু হয়েছে এক যুবকের। পুলিশের প্রাথমিক অনুমান গ্যাং রাইভেলরি থেকেই গুলি করে হত্যা করা হয়েছে ওই যুবককে। তাঁর শরীরে চার থেকে পাঁচটি গুলি লেগেছে বলে প্রাথমিকভাবে অনুমান করা হচ্ছে। মোটরবাইকে করে আসা দুস্কৃতিরা কার্যত গুলি বৃষ্টি করে গেছে নিহত ওই ব্যক্তির শরীরে।

আরো খবর আপডেট মোবাইলে পেতে ক্লিক করুন এখানে

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে মৃত যুবকের নাম প্রসাদ রাও। চল্লিশ বছরের প্রসাদ একদা খড়গপুরের মাফিয়া ডন শ্রীনু নাইডুর ঘনিষ্ঠ সহচর বলেই পরিচিত ছিল। ২০১৬ সালে শ্রীনুর সাথে প্রসাদও তৃনমূল কংগ্রেসে যুক্ত হয়েছিল। ওই বছরই শ্রীনু খুন হওয়ার পর তাঁর দল ভেঙে কয়েকটি গোষ্ঠীতে ভাগ হয়ে যায়। এই খুনের পেছনে সেই গোষ্ঠীরই কেউ রয়েছে নাকি অন্য কোনও গোষ্ঠী এই কাজ করেছে তা খতিয়ে দেখছে পুলিশ। প্রসাদকে লক্ষ্য করে গুলি চালানোর পরই আততায়ীরা এলাকা ছাড়ে। খবর পেয়েই ঘটনাস্থলে ছুটে যায় খড়গপুর টাউন থানার পুলিশ। প্রসাদকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় খড়্গপুর রেল হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। কিন্তু শেষ অবধি বাঁচানো যায়নি।

স্থানীয় একটি সূত্রে জানা গেছে ঘটনার সময় শহরের ২০নম্বর ওয়ার্ডের নিউ স্টেলেমেন্ট মাতা মন্দিরের কাছে বসেছিল প্রসাদ। আততায়ীরা মোটর বাইকে এসে তাঁর কাছে থামে এবং একের পর গুলি চালিয়ে চলে যায়। ঘটনাস্থলেই লুটিয়ে পড়েন রক্তাক্ত প্রসাদ। গুলির শব্দে প্রথমে ছুটে পালান আশেপাশের লোকেরা। আততায়ীরা হটে যাওয়ার পরই তাঁরা ফিরে আসে ততক্ষণে অবশ্য সংজ্ঞা হারিয়েছেন প্রসাদ। জনতা প্রথমে খবর দেন স্থানীয় তৃনমূল নেতাদের। সেখান থেকে খবর যায় পুলিশে। ইতিমধ্যে শহরের বিভিন্ন জায়গায় তল্লাশি শুরু করেছে পুলিশ। দুস্কৃতীরা রাতেই শহর ছাড়তে পারে অনুমান করে শহরের প্রতিটি প্রবেশ ও বহির্গমন পথে নাকা চেকিং শুরু করেছে পুলিশ। ঘটনার খবর পেয়েই হাসপাতালে ছুটে গিয়েছেন তৃনমূল কংগ্রেসের শহর নেতারা।

- Advertisement -
Latest news
Related news