Tuesday, April 16, 2024

Nandigram: নন্দীগ্রামে তৃনমূলের কোন্দল ! ‘স্বদেশই দিদিকে হারিয়েছে।’ দোলা সেনকে বলল বিক্ষুব্ধরা

- Advertisement -spot_imgspot_img

নিজস্ব সংবাদদাতা: বিধানসভা নির্বাচনে পরাজিত হয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তৃনমূলের তরফে এমন কী মুখ্যমন্ত্রী স্বয়ং দাবি করেছেন ভোটে কারচুপি করে হারানো হয়েছে তাঁকে। সেই নিয়ে মামলাও গড়িয়েছে কোর্টে। কিন্তু সেই নির্বাচনের বছর না গড়াতেই বৃহস্পতিবার সাংসদ দোলা সেনকে ঘিরে যেভাবে তৃনমূলের এক গোষ্ঠী বিক্ষোভে ফেটে পড়ল তাতে একটা জিনিস অন্ততঃ স্পষ্ট হয়ে গেছে যে নেত্রীর পরাজয়ের পেছনে দলীয় কোন্দলও কম গুরুত্বপূর্ণ ছিলনা। কারন দোলা সেনকে বিক্ষুব্ধ কর্মীরা জানালো, স্বদেশ অধিকারীই ‘দিদি’কে হারিয়েছে। পাশাপাশি শ্লোগান উঠল, স্বদেশ অধিকারী নন্দীগ্রাম থেকে দূর হাটো!

আরো খবর আপডেট মোবাইলে পেতে ক্লিক করুন এখানে

উল্লেখ্য বৃহস্পতিবার নন্দীগ্রামের দলীয় কার্যালয়ে নন্দীগ্রাম বিধানসভার অধীন তৃনমূল নেতৃত্বকে নিয়ে একটি সাংগঠনিক বৈঠক করতে হাজির হয়েছিলেন সাংসদ তথা রাজ্যের মহিলা নেত্রী দোলা সেন। যেখানে নন্দীগ্রাম ১ এবং নন্দীগ্রাম ২ ব্লকের নেতৃত্বকে উপস্থিত থাকতে বলা হয়েছিল। নন্দীগ্রাম ১ পঞ্চায়েত সমিতির সহ-সভাপতি আবু তাহের অভিযোগ করেন, ‘এই সভার কথা আমরা জানতেই পারিনি। বুধবার অন্য সূত্র মারফৎ জানতে পারি যে দোলা সেন সহ রাজ্য নেতৃত্বরা এই সভায় আসছেন।’ তাহের বলেন, ‘ আমরা অবাক হয়ে দেখলাম যে যে এলাকায় ‘দিদি’ সর্বাধিক ভোট পেয়েছেন সেই এলাকার নেতৃত্ব এই বৈঠকে ডাক পাননি অথচ যারা দলের ঝান্ডা আর ডান্ডা নিয়ে দায়িত্ব সহকারে দিদিকে হারানোর জন্য উঠে পড়ে লেগেছিল তারাই এই বৈঠকে ডাক পেয়েছে।’

এদিন দোলা সেনের গাড়ি নন্দীগ্রাম বাজারে প্রবেশ করার সাথে সাথেই কয়েকশ তৃনমূল কর্মী সেই গাড়িকে ঘিরে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন। আবু তাহেরের অনুগামীরা নন্দীগ্রামের ব্লক সভাপতি স্বদেশ অধিকারীর বিরুদ্ধে স্লোগান দিতে থাকে স্বদেশ অধিকারী নন্দীগ্রাম থেকে দূর হাটো। সেই সময় সেখানে উপস্থিত হন সাংসদ দোলা সেন। তখন তাঁকে ঘিরে বিক্ষোভ শুরু হয়। ঘিরে ধরা হয় দোলার গাড়ি। পুলিশ এসে পরিস্থিতি শান্ত করে। দোলা সেন গাড়ি থেকে বেরিয়ে এসে তাঁদের সঙ্গে কথা বলেন এবং আশ্বস্ত করেন তাঁদের কথাও শোনা হবে বলে।

আবু তাহের বলেন, ‘‘আজ নন্দীগ্রামে তৃণমূলের সাংগঠনিক বৈঠকে যাঁদের ডাকা হয়েছে, তাঁরাই বিধানসভা ভোটের সময় বিজেপি-র পতাকা কাঁধে নিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে হারিয়েছিলেন। আর আমরা বাদ পড়ে গেলাম! যখন তা নিয়ে বিক্ষোভ করলাম, তখন আমাদের বৈঠকে ডাকা হল। এটা ঠিক নয়।’’ তাহের আরও বলেন, ‘‘আমরা সুশৃঙ্খল ভাবে দলটা করব। কলকাতায় গিয়ে দিদিকে সব জানাব।’’ উল্লেখ্য ব্লক সভাপতি স্বদেশ অধিকারী নন্দীগ্রামে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নির্বাচনী এজেন্ট সেক সুফিয়ানের ঘনিষ্ঠ বলেই পরিচিত। সেক সুফিয়ানের সঙ্গে আবু তাহেরের ঠান্ডা লড়াই আছে।

এরপর দোলা সেন তৃণমূল কার্যালয়ের সভা সেরে ১০০ মিটার দূরেই নন্দীগ্রামের কর্মতীর্থ ভবনে তাহের ও তাঁর অনুগামীদের নিয়ে ফের আরও একটি বৈঠক করেন। দোলা সেনের তরফে অবশ্য নন্দীগ্রামে বিক্ষোভের কথা স্বীকার করা হয়নি। তিনি সাংবাদিকদের বলেন, “নন্দীগ্রামে কোনও বিক্ষোভ হয়নি। এখানে এসে কর্মীদের সঙ্গে কথা বলেছি।”

- Advertisement -
Latest news
Related news