Sunday, April 14, 2024

Nandigram: পঞ্চায়েত ভোটের আগেই নন্দীগ্রামে পদত্যাগ করলেন পঞ্চায়েত প্রধান! তুঙ্গে তৃণমূলী তরজা!

- Advertisement -spot_imgspot_img

নিজস্ব সংবাদদাতা: ঘাড়ের ওপর নিঃশ্বাস ফেলছে পঞ্চায়েত নির্বাচন কিন্তু কোন্দলে বিশ্রাম নেই নন্দীগ্রাম তৃনমূলের। আর সেই কোন্দল এতটাই যে পদত্যাগ করলেন নন্দীগ্রামের এক পঞ্চায়েত প্রধান। তৃনমূল সূত্রে জানা গেছে নন্দীগ্রাম ১ নম্বর ব্লকের অন্তর্গত ভেকুটিয়া গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান মমতা দাস তাঁর নিজের পদত্যাগপত্র পাঠিয়ে দিয়েছেন বিডিওর কাছে। সোমবার সপ্তাহের শুরুর দিনই এই খবর জানাজানি হবার পরই চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে নন্দীগ্রামে। জানা গেছে তৃণমূলেরই কয়েকজন মাতব্বর নেতার চাপের মুখে পদত্যাগ করতে বাধ্য হয়েছেন প্রধান মমতা দাস। তৃণমূলের অন্দর সূত্রে জানা গেছে স্থানীয় কয়েকজন নেতা মমতা দাসকে
কিছুদিনের জন্য ছুটি নিতে বলেন এবং তাঁর দায়িত্ব উপপ্রধানকে বুঝিয়ে দিতে বলে। এরপরই ক্ষুব্ধ মমতা দাস পদত্যাগের সিদ্ধান্ত নেন।
তৃনমূলের বক্তব্য মমতা দাস অসুস্থ। তিনি ঠিক মত কাজ করতে পারছেননা। এরফলে এলাকায় উন্নয়নের কাজ ব্যাহত হচ্ছে। পঞ্চদশ আর্থিক মঞ্জুরির প্রায় ৪৫ লক্ষ টাকা পড়ে রয়েছে। এলাকার বেশ কিছু রাস্তা, পানীয় জলের সংস্থান করা যাচ্ছেনা। সাম্প্রতিক কালে ওই কাজ শেষ করার জন্য হলদিয়া মহকুমা শাসকের চাপ আসছে। এই অবস্থায় প্রধান মমতা দাসকে ছুটি নেওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়েছিল কিন্তু মমতা দাস বিষয়টি নিয়ে অহেতুক জটিলতার সৃষ্টি করছেন। অন্যদিকে মমতা দাস তাঁর ঘনিষ্ঠদের জানিয়েছেন, দলের অহেতুক হস্তক্ষেপের কারণেই তিনি কাজ করতে পারছেননা। দলের কিছু ব্যাক্তি তাঁকে তাঁদের ইচ্ছামত টেন্ডার পাইয়ে দেওয়ার জন্য চাপ সৃষ্টি করছে। বেআইনি কাজ করতে বাধ্য করছে। এমতাবস্থায় পদত্যাগ করা ছাড়া তাঁর উপায় নাই নচেৎ তাঁকেই আইনি সমস্যায় পড়তে হবে।
অন্য আরেকটি সূত্র দাবি করছে মমতা দাস আদতে শুভেন্দু অধিকারীর ঘনিষ্ঠ। শুভেন্দু অধিকারী বিজেপিতে গেলেও তিনি তৃণমূলে থেকে গেছেন বটে কিন্তু তিনি গোপনে বিজেপির সাথেই যোগাযোগ রেখে চলেছেন আর বিজেপির পরামর্শ মেনেই তিনি পদত্যাগ করেছেন যা পঞ্চায়েত নির্বাচনের মুখে তৃণমূলকে অস্বস্তিতে ফেলেছে। যদিও পাশাপাশি এটাও ঠিক যে ভেকুটিয়া অঞ্চলে
তৃনমূলের দলীয় কোন্দল এতটাই বেশি যে দলের তরফেই ওই এলাকায় দু’জন অঞ্চল সভাপতি করা হয় যা সারা বাংলার ইতিহাসে বিরল। একই অঞ্চলের সভাপতি কাঞ্চন দাস আবার অনুপ প্রধান। তৃণমূলের এই কোন্দলের ‌কারনেই এই ব্যবস্থা বলে জানা গেছে। যদিও তৃণমূলের জবাব অঞ্চলটি বড় বলেই এই ব্যবস্থা।

- Advertisement -
Latest news
Related news