Friday, April 19, 2024

paschim Medinipur: রাস্তায় আগে পাগলা কুকুর কামড়াতো এখন মুখ্যমন্ত্রীর পুলিশ কামড়াচ্ছে! পশ্চিম মেদিনীপুরের উপচে পড়া ভীড়ে বললেন মীনাক্ষী

- Advertisement -spot_imgspot_img

নিজস্ব সংবাদদাতা: “আগে মানুষ রাস্তায় ভয় পেত পাগলা কুকুরের, কখন বুঝি কামড়ে দেয়। আর ইদানিং সেই কাজ করছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের পুলিশ। সরকার বিরোধী আন্দোলনকারীদের আঁচড়ে কামড়ে দিচ্ছে পুলিশ!” মাসে শিক্ষকতার চাকরীর পরীক্ষায় উত্তীর্ণরা দ্রুত নিয়োগ চেয়ে বিক্ষোভ দেখাতে গিয়ে এক পুলিশ কর্মীর কামড় খান। প্রথমে পুলিশ অস্বীকার করলেও পরে প্রমাণিত হয় যে ওই কামড় পুলিশেরই। এমন কী চিহ্নিত হন সেই পুলিশ কর্মী। রবিবার পশ্চিম মেদিনীপুরের ক্ষীরপাইয়ে এক ভিড়ে ঠাসা দলীয় জনসভায় সেই ঘটনাকেই তীব্র কটাক্ষ করে এমনই বক্তব্য রাখলেন বাম নেত্রী মীনাক্ষী মুখার্জী।

আরো খবর আপডেট মোবাইলে পেতে ক্লিক করুন এখানে

বাংলার ইতিহাসে এই প্রথম দুর্নীতিতে অভিযুক্ত হয়ে একের পর এক নেতা মন্ত্রী জেলে রয়েছেন। শুধু বাংলা নয় বিশ্বের ইতিহাসে এই বেনজির কলঙ্কের ঘটনাকে স্মরন করিয়ে দিয়ে সিপিএমের রাজ্য নেত্রী বলেন, “একের পর এক মন্ত্রী লুঠের যন্ত্রীরা এখন হাতা মাপা ভাত খাচ্ছে জেল খানায়। আরও অনেকে জেলে যাবে। পুলিশ মন্ত্রী কোমায় মানসিক চাপে।  ফলে পুলিশ যেমন আঁচড়াচ্ছে, কামড়াচ্ছে তেমনই
মাজা ভাঙা তৃণমূল জেলায় জেলায় বোম শিল্প ও বন্দুক কারখানা আমদানি করেছে। উল্লেখ্য শুক্রবারই পাশের জেলাতেই এক তৃনমূল বুথ সভাপতির বাড়িতে মজুত বোমা বিস্ফোরণে মৃত্যু হয়েছে বুথ সভাপতি সহ ২ জনের।

রাজ্য জুড়ে লাগাতার শাসকদলের নেতা কর্মী যোগেই বোমা বিস্ফোরণ, অস্ত্র উদ্ধারের ঘটনাকে কটাক্ষ করে যুবনেত্রী বলেন, ” রাজ্য থেকে শিল্প তাড়িয়ে এখন নতুন শিল্প গড়ছে তৃনমূল। ক্ষমতা ধরে রাখতে মরিয়া তৃনমূল জনগনের লুটের টাকায় বোমা বন্দুকের কারখানা গড়ছে। জেলায় জেলায় চপ শিল্পের পরিবর্তে এত বোম শিল্প ও বন্দুক কারখানা কার অনুপ্রেরণায় গড়ে উঠলো পুলিশ মন্ত্রীকে জবাব দিহি করতে হবে।।এরাজ্য পুলিশের একটাই কাজ। চোর জুয়াচোর ডাকাতদের পাহারা দেওয়া। প্রতিবাদীদের উপর নগ্ন আক্রমণ সহ পিটিয়ে খুন করা আবার এখন মমতা ব্যানার্জীর পুলিশ কামড়াচ্ছে।

উল্লেখ্য ক্ষীরপাইয়ের হালদিঘির ময়দানে এই সভায় সত্যি সত্যি লাল পতাকার নজির বিহীন সমাবেশ দেখেছে মানুষ। অনেকদিন পর ক্ষীরপাইয়ের মানুষ দেখল লাল পতাকায় মোড়া বিশাল লম্বা লম্বা ভিড়ে ঠাসা মিছিল চারদিক থেকে সভা স্থলে প্রবেশ করছে। জায়গা না পেয়ে বহু মানুষকে দেখা গেল গাছের উপর, পাশাপাশি ঘরের ছাদে উঠে সমাবেশে বক্তাদের বক্তব্য শুনলেন সন্ধ্যা গড়িয়ে যাওয়ার পরও।” পঞ্চায়েত থেকে লুটেরা হঠাও আর জনগনের পঞ্চায়েত বানাও” এই শ্লোগানকে সামনে রেখে আয়োজিত এই সমাবেশে মূল বক্তা ছিলেন মীনাক্ষী ছাড়াও ছিলেন সিপিএমের পশ্চিম মেদিনীপুর জেলা সম্পাদক মন্ডলীর সদস্য অশোক সাঁতরা এবং জেলা কমিটির সদস্য বিদ্যুত রায় এবং এরিয়া কমিটির সম্পাদক বিপ্লব রায় প্রমূখরা।

- Advertisement -
Latest news
Related news