Friday, April 19, 2024

Ghatal: পশ্চিম মেদিনীপুরের চোলাই খেয়ে মৃত ১! পুলিশে আস্থা হারিয়ে রাতেই ঠেক গুঁড়িয়ে দিল মহিলারাই

- Advertisement -spot_imgspot_img

নিজস্ব সংবাদদাতা: চোলাই যন্ত্রনায় দিনের পর দিন অতিষ্ঠ হয়েই ছিলেন। বৃহস্পতিবার সেই চোলাই খেয়ে এক ব্যাক্তির মৃত্যুর পরই ক্ষিপ্ত মহিলার দল রাতেই অভিযান চালিয়ে গুঁড়িয়ে দিল মদের ঠেক। বৃহস্পতিবার এমনই ঘটনা ঘটল পশ্চিম মেদিনীপুরের ঘাটাল পৌরসভা এলাকায়। স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে পৌরসভার ১৩ নম্বর ওয়ার্ডের কোন্নগর ঘাটাল গভর্নমেন্ট পলিটেকনিক কলেজর সামনে রাস্তার ধারে চায়ের দোকানের নিয়মিত মদ বিক্রি হত। চোলাইয়ের পাশাপাশি রাখা হত দেশী বিদেশী মদও। ক্ষুব্ধ মহিলাদের অভিযোগ স্থানীয় মানুষজন তো বটেই পাশাপশি জড়ো হত বিভিন্ন এলাকার মানুষও। এমনকি সমাজ বিরোধীদের আখড়াও। আর এই সবের পাল্লায় পড়ে নষ্ট হচ্ছে এলাকার কিশোর থেকে যুবকরা। এভাবেই ক্ষোভ পুঞ্জীভূত হচ্ছিল। সেই ক্ষোভের বাঁধ ভেঙে পড়ল বৃহস্পতিবার।

আরো খবর আপডেট মোবাইলে পেতে ক্লিক করুন এখানে

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, বৃহস্পতিবার দুপুরে
কোন্নগর ফেরি এলাকার বাসিন্দা ৫৪ বছর
বয়সী পরেশ বর দোলইয়ে মৃত্যু হয়। স্থানীয় জনতা দাবি করে এই চোলাইয়ের ঠেকে মদ্যপান করে  যাওয়ার পরই জলে পড়ে মৃত্যু হয়। স্থানীয় মানুষের দাবী চোলাই খেয়ে বাড়ি যাওয়ার পথেই একটি জলাশয়ে পড়ে মারা যায় ওই ব্যাক্তি। মানুষের দাবী মাত্র এক হাঁটু জলে পড়ে মারা যায় ওই ব্যাক্তি। সে এতটাই মদ খেয়েছিল যে তাঁর দাঁড়ানোর ক্ষমতা ছিলনা। সেই খবর ছড়িয়ে পড়ার পরই ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠেন মহিলারা। তাঁদের নেতৃত্বেই এলাকার স্থানীয় মানুষজন লাঠি সোটা নিয়ে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় ভেঙে গুড়িয়ে দেয় চোলাইয়ের ঠেক।

মহিলারা জানিয়েছেন, এই ঠেকের দাপটে এই রাস্তা দিয়ে যাতায়াত করাই মুশকিল হয়ে পড়েছিল। রাস্তার ওপরেই সকাল থেকে রাত অবধি দাঁড়িয়ে থাকত মদ্যপের দল। রাস্তা ছেড়ে দিতে বললে গালি গালাজ করত তারা। এলাকার কিছু প্রভাবশালীর প্রশ্রয় থাকায় তাদের দাপট বাড়ছিল। এছাড়াও মদ্যপদের জ্বালায় গৃহ অশান্তি বাড়ছিল নিত্য নৈমিত্তিক।  বাড়ির জিনিস বিক্রি করে মদ খাচ্ছিল মানুষজন। দিন মজুররা আয়ের প্রায় সবই উড়িয়ে দেয় মদ খেয়ে। তাঁদের দাবি পুলিশ প্রশাসন সব জেনেও নিশ্চুপ ছিল। বাধ্য হয়েই তারা নিজেরাই গুঁড়িয়ে দিয়েছে ঠেক। এদিন দোকানের সমস্ত জিনিস পত্র বাইরে বের করে গুঁড়িয়ে দেওয়া হয় মদের ঠেকটি।

- Advertisement -
Latest news
Related news