Saturday, April 20, 2024

Midnapore: পূর্ব মেদিনীপুরের হোগলা বনে বোমার চাষ! বোমা মিলল হাজার খানেক, উদ্ধার হওয়া বোমায় ২টি গ্রাম উড়ে যাওয়ার ক্ষমতা, খড়গপুর থেকে বোম্ব স্কোয়াড যাচ্ছে ঘটনাস্থলে

- Advertisement -spot_imgspot_img

নিজস্ব সংবাদদাতা: ১০০ টি করে পরিবার সম্পন্ন দুটি গ্রাম উড়িয়ে দেওয়ার ক্ষমতা ছিল পূর্ব মেদিনীপুরে উদ্ধার হওয়া মোট বোমার শক্তিতে। বোমা গুলির সম্মিলিত ওজন ৮০কেজি থেকে ১কুইন্টাল। তাজা বোমা তাই ধরে ধরে গোনার অবস্থায় ছিলনা তখুনি। পূর্ব মেদিনীপুরের এক পুলিশ আধিকারিক জানালেন, ‘ সমস্তটা গোনা সম্ভব হয়নি। এত বোমা এক সাথে নিষ্ক্রিয় কিংবা বিস্ফোরণ ঘটিয়ে নিস্তেজ করে দেওয়া দ্রুত সম্ভব নয়। প্রাথমিকভাবে মনে হচ্ছে উদ্ধার হওয়া বোমার সংখ্যা ৭০০-৮০০ হবে, হাজারের কাছাকাছি হলেও আশ্চর্য হওয়ার কিছু দেখছি। যা বোমা উদ্ধার হয়েছে তা যদি একসাথে বিস্ফোরণ হত বা হয় দুটি প্রমান মাপের গ্রাম উড়িয়ে দিতে পারে।’ ঘটনা সত্যি সত্যি তাই। হঠাৎ করে দেখলে মনে যেন বোমার চাষ হচ্ছে। ১৫টি ড্রাম আর ২টি বস্তায় উদ্ধার হয়েছে ওই বোমা গুলি।

আরো খবর আপডেট মোবাইলে পেতে ক্লিক করুন এখানে

শনিবার পূর্ব মেদিনীপুর ময়না থানার পুলিশের তরফে একটি বিশেষ অভিযান চালিয়ে বাকচা পঞ্চায়েতের গড়ামহাল এলাকার দুটি পাড়া থেকে ওই বিপুল পরিমাণ তাজা বোমা উদ্ধার করা হয়েছে। পুলিশ জানিয়েছে নির্দিষ্ট সূত্র মারফত খবর পেয়ে এদিন বেলা সাড়ে ১১ টা নাগাদ গড়ামহাল গ্রামের ঘুঘুরপুল লাগোয়া হোগলা বনে তল্লাশি চালিয়ে ১৫ টি ড্রাম ও দুটো বস্তায় মজুত ওই বোমাগুলির খোঁজ পায় পুলিশ। ড্রাম ও বস্তাগুলি মাটিতে পোতা থাকায় ঝুঁকি নিয়ে বোমাগুলি হোগলা বন থেকে উদ্ধার করে নিয়ে আসতে পারেনি পুলিশ। আপাতত সেখানেই রয়েছে বোমাগুলি। এলাকায় মোতায়েন করা হয়েছে পুলিশ।

জানা গেছে রবিবার খড়গপুর থেকে সিআইডির বম্ব স্কোয়াডের দল ঘটনাস্থলে পৌঁছে উদ্ধার করার পর সেগুলিকে নিষ্ক্রিয় করবে। বোমাগুলি কী কারণে মজুত রাখা হয়েছিল ও কারা তা মজুত রেখেছিল তা নিয়ে তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ। ময়না থানার ওসি গোপাল পাঠক বলেন, আমাদের কাছে বোমা মজুত রাখার খবর আসা মাত্রই অভিযান চালানো হয়।কোথাও বোমা ও বেআইনি অস্ত্রশস্ত্র মজুত রয়েছে কিনা তাও তল্লাশি চালানো হচ্ছে।’ ঘটনায় বিজেপি যোগের অভিযোগ তুলেছে তৃনমূল। তাঁদের দাবি ওই এলাকার বিজেপির দুই নেতা স্থানীয় বিজেপি নেতা নাড়ু মণ্ডল ও সঞ্জয় তাঁতির বাড়ি লাগোয়া হোগলা বন থেকে বোমাগুলি উদ্ধার হয়েছে। তাই বিজেপিই যুক্ত রয়েছে ঘটনার পেছনে।

ময়না ব্লক তৃণমূলের সভাপতি সুব্রত মালাকার বলেন,’ বাকচা জুড়ে হিংসা বাড়ছে। বিজেপি নেতাদের পাড়ায় পাড়ায় বোমা উদ্ধার হচ্ছে। গোটা বাকচকে উড়িয়ে দেওয়ার পরিকল্পনা নিয়ে এই বিপুল পরিমাণ বোমা মজুত করেছিল বিজেপি। পুলিশ সেটা শক্ত হাতে দমন করেছে, সে জন্য তাদের ধন্যবাদ জানাই।’ বিজেপির দখলে থাকা গোটা ময়না বিধানসভা এলাকাই বারুদের স্তুপে দাঁড়িয়ে বলে জানিয়েছেন তিনি। বলেন, ‘ এর থেকে বহু গুণ বেশি বোমা মজুত রয়েছে গোটা ময়নাতে। বিজেপি বিধায়ক অশোক দিন্দা বাইর থেকে লোক ও বোমা এনে পাড়ায় পাড়ায় মজুত করে রেখেছেন। ওদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা না নেওয়া হলে যে কোনও মুহূর্তে ঘটতে পারে নাশকতার ঘটনা।’

যদিও নিজেদের বিরুদ্ধে ওঠা বোমা মজুতের অভিযোগ উড়িয়ে তমলুক সাংগঠনিক জেলা বিজেপি-র সহ সভাপতি আশিস মণ্ডল বলেন, ‘আগেও বহু বার বোমা এবং আগ্নেয়াস্ত্র মজুতের বিষয়ে পুলিশকে জানিয়েছি আমরা। এলাকায় সন্ত্রাস করতে তৃণমূলই বোমা মজুত করেছে।’পুলিশ এভাবে সক্রিয় থাকলে এলাকায় কোনও বেআইনি কাজ হবে না বলে জানিয়েছেন স্থানীয়রা। বাসিন্দাদের কথায়, বোমা, বন্দুক এভাবে উদ্ধার করতে থাকলে আমরা সাধারণ মানুষ স্বস্তিতে থাকতে পারব। উল্লেখ্য বারংবার শাসক এবং বিজেপির মধ্যে সংঘর্ষে উত্তপ্ত হয়েছে এই বাকচা এলাকা। মৃত্যুও হয়েছে সেই সংঘর্ষের কারনে।

 

- Advertisement -
Latest news
Related news