Tuesday, April 16, 2024

Fake Maoist Poster: পশ্চিম মেদিনীপুরের ‘মাও’ পোস্টারে এবার পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি ও ব্লক সভাপতিকে খুনের হুমকি! তৃণমূলেরই কারও কাজ , বললেন সভাপতিই

- Advertisement -spot_imgspot_img

নিজস্ব সংবাদদাতা: এবার মাওবাদী নামাঙ্কিত পোস্টার পড়ল জঙ্গলমহলের বাইরে। যদিও মাওবাদী স্টাইলের বাইরে গিয়ে এবার পোস্টার পড়েছে লালকালির বদলে কালো কালিতে, তুলির বদলে ব্যবহার করা হয়েছে মার্কার পেন। ফলে শুরুতেই পোস্টারকে ঘিরে সন্দেহের বাতাবরণ তৈরি হয়েছে আর সেই সন্দেহকে উস্কে দিয়ে স্থানীয় তৃনমূল ব্লক সভাপতি আঙুল তুলেছেন তৃণমূলেরই একাংশের বিরুদ্ধে। মঙ্গলবার সকালে এই পোস্টার উদ্ধার হয়েছে পশ্চিম মেদিনীপুরের চন্দ্রকোনা থানার ঝাঁকরা বাজার এলাকা থেকে। যে পোস্টারের শুরুতে ও শেষে লেখা হয়েছে, কাটমানি ফেরত দিতে হবে মাওবাদী ঐক্য জিন্দাবাদ, কিষাণজি অমর রহে।

আরো খবর আপডেট মোবাইলে পেতে ক্লিক করুন এখানে

জানা গেছে চন্দ্রকোনা ২ ব্লকের অন্তর্গত ঝাঁকরা বাজার এলাকায় মঙ্গলবার সাতসকালে স্থানীয় লোকজন ও তৃণমূলের কিছু কর্মী সমর্থক দেখতে পায় কালো কালিতে লেখা একটি মাওবাদী নামাঙ্কিত পোস্টার। ওই পোস্টারগুলিতে দাবি করা হয়েছে , ” হীরালাল ঘোষ ১০ বছরের জনগনের ২০ কোটি টাকা লুট করেছে। ৭ দিনের মধ্যে সেই টাকা ফেরত দিতে হবে না হলে সপরিবারে প্রাণে মেরে ফেলা হবে। উল্লেখ্য হীরালাল ঘোষ চন্দ্রকোনা ২ পঞ্চায়েত সভাপতি। ওই ব্লকের ব্লক তৃণমূল সভাপতি জগজিৎ সরকার ও কয়েকজন তৃনমূল নেতা-কর্মীদের নামেও প্রায় একই ভাষায় হুমকি দেওয়া হয়েছে ওই পোস্টারে। নাম উল্লেখ করা হয়েছে সান্ত আলি, কাঞ্চন, শান্তি ঘোষ, তাপস খামরুই, বাচ্চু ঘোষ ও নটু ঘোষের। এই ব্যক্তিরা সব্বাই এলাকার পরিচিত তৃনমূল কর্মী ও নেতা।

এই পোস্টারকে অবশ্য গুরুত্ব দিতে নারাজ পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি হীরালাল ঘোষ। তিনি বলেন,” মাওবাদী নয়, এই পোস্টার দিয়েছ স্থানীয় কিছু দুষ্কৃতি।তার সাথে হয়ত দলের সুবিধা না পাওয়া কিছু কর্মীও রয়েছেন। আমি বিষয়টি পুলিশের ওপরই ছেড়ে দিয়েছি।’ উল্লেখ্য চন্দ্রকোনা এলাকায় তৃনমূলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব রয়েছে। হীরালাল ঘোষকে পছন্দ করেনা এমন কিছু ব্যক্তিই এই কাজ করতে পারে বলে পুলিশেরও ধারণা। পুলিশের এক আধিকারিক জানিয়েছেন, ‘পরিস্কার বোঝা যাচ্ছে নেহাতই ব্যক্তিগত আক্রোশ, কায়েমীস্বার্থ কাজ করছে এমন কিছু মানুষ এগুলি করেছে। খুবই কাঁচা হাতের কাজ। একটা সাধারণ বিষয় হল, মাওবাদীরা পোস্টারের নিচে সিপিআই(মাওবাদী) কথাটা ব্যবহার করে। এক্ষেত্রে শুধু মাওবাদী কথা ব্যবহার করা হয়েছে। আমরা তদন্ত করছি। যারা জড়িত আছে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

- Advertisement -
Latest news
Related news