Friday, April 19, 2024

Kharagpur Midnapore: মাঝ রাতে বেপরোয়া বাইক রেসিং! খড়গপু্র থেকে মেদিনীপুর যাওয়ার পথে মৃত দুই নবালকের

The first bike had overtaken the second bike by crossing the Mohanpur Birendra Setu just three minutes ago. The second bike arrived a little later and saw the two riders of the first bike face down in the gutter on the side of the road. The bike lying on the side of the road still has the start, rear wheel spinning. The place of incident is Jagannath Mandir bus stop in Medinipur city. The incident happened around 3 am on Thursday. It is known that the four were returning from the rush fair in Barakala area of ​​rural Kharagpur. Get out of there by 2 am. On the way, eat at a dhaba and then start the bike racing. One bike is fighting to pass the other bike. Just before the Jagannath Mandir intersection, the bike rider in front wanted to take a last look at how far the bike behind was. The bike touching the fork of 90 km has touched the cement pole on the side of the road. The streets and sewers are covered with mud from the head. The rear bike is the relative elder brother of the deceased minor of the front bike. Screaming, people came running some people. He was taken to Medinipur Medical College hospital. The doctors wrote the death certificate. One is 16 years old, the other is 17 years old.

- Advertisement -spot_imgspot_img

নিজস্ব সংবাদদাতা: দুটি বাইকে দু’জন করে চারজন। প্রথম বাইকটা দ্বিতীয় বাইকটাকে মোহনপুর বীরেন্দ্র সেতু পেরিয়ে পাশ কাটিয়ে এসছিল ঠিক তিন মিনিট আগে। দ্বিতীয় বাইকটা একটু পরে এসে দেখল প্রথম বাইকের দুই আরোহী রাস্তার পাশে নর্দমায় মুখ থুবড়ে পড়ে। রাস্তার পাশে পড়ে থাকা বাইকটায় তখনও স্টার্ট রয়েছে, পিছনের চাকা ঘুরছে। ঘটনাস্থল মেদিনীপুর শহরের জগন্নাথ মন্দির বাস স্টপেজ। বৃহস্পতিবার ভোর ৩ টা নাগাদের ঘটনা। জানা গেছে গ্রামীন খড়গপুরের বড়কলা এলাকায় রাশের মেলা থেকে ফিরছিলেন ওই চারজন। রাত ২ টা নাগাদ সেখান থেকে বের হন। পথে কোনও ধাবায় খাওয়া দাওয়া তারপর শুরু বাইক রেসিং। এক বাইক অন্য বাইককে পেরিয়ে যাওয়ার লড়াই। জগন্নাথ মন্দির মোড়ের ঠিক আগেই সামনের বাইক চালক ঘাড় ঘুরিয়ে শেষবার দেখে নিতে চেয়েছিলেন পিছনের বাইক কতটা দূরে। ৯০ কিলোমিটারের কাঁটা ছোঁয়া বাইক ততখনে ছুঁয়ে ফেলেছে রাস্তার পাশে থাকা সিমেন্টের খুঁটিকে। মাথার ঘিলু ছিটকে রাস্তা ও নর্দমা মাখামাখি।

আরো খবর আপডেট মোবাইলে পেতে ক্লিক করুন এখানে

পেছনের বাইকে সামনের বাইকের মৃত নাবালকের সম্পর্কিত দাদা। চিৎকার চেঁচামেচি, লোকজন ছুটে এলেন কিছু মানুষ। নিয়ে যাওয়া হল মেদিনীপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসাতালে। চিকিৎসকরা মৃত্যুপত্র লিখে দিলেন। একজনের বয়স ১৬, অন্য জনের ১৭ বছর। ষোলো বছরের দেবব্রত করের বাড়ি ভোলা ময়রার চক আর সতেরো বছরের রূপম চ্যাটার্জী বাড়ি পাটনা বাজার। নিজেদের বাড়ি থেকে মাত্র কয়েক’শ মিটার দূরে লাশ হয়ে গেলেন দুই কিশোর। কারুরই মাথায় বাইক ছিলনা, ফলে লাশ হতে সময় লাগেনি বেশিক্ষন। পরিবার সূত্রে জানা গেছে দুজনেই পড়াশুনার পাঠ চুকিয়েছেন অনেকদিন। নিত্য সঙ্গী বাইক। কারুর বাবা হোটেল ব্যবসায়ী কারুর বাবা অন্য পেশায়। ছেলের বাইকের তেলের জোগান আটকায় না। এত রাতে ছেলেরা কোথায় যায়, কেন যায় কেউ খোঁজ রাখেন কী? সব দোষ পুলিশের কিংবা প্রশাসনের? ছেলেদের আবদারে এই অন্যায় ইন্ধণ জুগিয়ে যাওয়ার দায় পরিবার নেবেনা?

- Advertisement -
Latest news
Related news