Sunday, April 14, 2024

Ghatal: পুজোর মুখে ঘাটাল দাসপুরে সক্রিয় ছিনতাইবাজ, লক্ষ্য ব্যাংক গ্রাহক, প্রাতঃভ্রমণকারী! এটিএম ভাঙতে গিয়ে ধৃত দুষ্কৃতীদের গনধোলাই জনতার

- Advertisement -spot_imgspot_img

নিজস্ব সংবাদদাতা: কিছুদিন চুপচাপ থাকার পর ফের ঘাটাল ও দাসপুর জুড়ে সক্রিয় হয়ে উঠেছে দুষ্কৃতীরা। গত ২৪ ঘন্টায় দাসপুর ও ঘাটাল শহরের অভিজাত এলাকায় দু’দুটি ছিনতাইয়ের ঘটনায় মনে করা হচ্ছে পূজার মুখে ফের সক্রিয় হচ্ছে ওই দুষ্কৃতীরা। বুধবার ও বৃহস্পতিবার ঘটনা দুটি ঘটেছে দাসপুর বাজার ও ঘাটালের কুশপাতা এলাকায়।

আরো খবর আপডেট মোবাইলে পেতে ক্লিক করুন এখানে
এটিএম ভাঙতে এসে

জানা গেছে বুধবার দুপুর ৩ টে নাগাদ দাসপুর থানার রাজনগর এলাকার এক বাসিন্দা অলক কর, দাসপুরের পাঞ্জাব ন্যাশনাল ব্যাংক থেকে এক লক্ষ টাকা তুলে ঘাটাল পাঁশকুড়া রাজ্য সড়ক হয়ে বাড়ির উদ্দেশ্যে রওনা হয়েছিলেন তিনি, হেঁটেই যাচ্ছিলেন তিনি। ব্যাংক থেকে বেরিয়ে কিছুটা এগোতেই হাতে থাকা ব্যাগ এবং ব্যাগের মধ্যে থাকা লক্ষাধিক টাকা, মোবাইল এবং বেশ কিছু নথিপত্র ছিনিয়ে নিয়ে চম্পট দেয় বাইকে থাকা দুই দুষ্কৃতী।

অন্যদিকে বৃহস্পতিবার ভোরের‌ ঘটনা ঘাটাল শহরের কুশপাতা এলাকায়। এদিন ভোরে বাড়ি থেকে প্রাতঃভ্রমণ বেরিয়েছিলেন কুশপাতার বাসিন্দা উমা আদক সহ আরো দুই মহিলা। তাঁদের দাবি ঘাটাল এসডিপিও অফিস সংলগ্ন মোড়ে এক ব্যক্তি পিছন থেকে উমার গলায় থাকা ভারী সোনার হার টেনে ধরেন এবং ধাক্কা মেরে উমাকে মাটিতে ফেলে দিলে হারটি ছিঁড়ে দুষ্কৃতীর হাতে চলে আসে। এরপরই দুষ্কৃতী পালিয়ে যায়। এদিকে মাটিতে পড়ে গিয়ে মাথা ফেটে যায় উমা দেবীর। হাসপাতালে চিকিৎসাধীন মহিলা। ঘাটাল শহরের মাঝে ভোরে এই হার ছিনতাইয়ের ঘটনায় আতঙ্কিত এলাকার প্রাতঃভ্রমণকারীরা। এই এলাকায় অধ্যাপক, চিকিৎসক, বড় ব্যবসায়ীদের বসবাস। স্বাস্থ্য সচেতন হওয়ায় ভোর বেলা প্রচুর নারী পুরুষ রাস্তায় হাঁটেন। ঘটনায় আশংকিত তাঁরা। পুলিশ সূত্রে জানা গেছে দুটি ঘটনাতেই নির্দিষ্ট অভিযোগ দায়ের হয়েছে, তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।

*দিনের আলোয় ফিল্মি কায়দায় এটিএম ভেঙে টাকা লুঠের চেষ্টা, হাতে নাতে ধরা পড়লো ৩ দুষ্কৃতী,খুঁটিতে বেঁধে চলে গণধোলাই, ঘটনার স্থলে পুলিশ এসে গ্রেফতার করল তিন জনকে*

এদিকে অপর একটি পৃথক ঘটনায় দাসপুরে এটিএম ভেঙে টাকা লুঠ করার চেষ্টা করতে গিয়ে হাতে নাতে ধরা পড়ে যায় তিন দুষ্কৃতী। ঘটনাটি ঘটেছে বৃহস্পতিবার দাসপুর থানার চাঁইপাট এলাকার অ্যাক্সিস ব্যাংকের এটিএমে। এটিএমের ভেতর প্রবেশ করে এটিএম মেশিন ভাঙচুর করার সময়, গ্রামবাসীরা পাকড়াও করে তাঁদের। তারপর খুঁটিতে বেঁধে চলে ব্যাপক গণপ্রহার। খবর পেয়ে দাসপুর থানার পুলিশ তাদের উদ্ধার ও গ্রেফতার করে নিয়ে যায়। পুলিশ তদন্তে নেমে জানতে পারে এই তিনজন হল লাল্টু বাহাদুর, বাপ্পা দাস, সুরাজ সাউ, হাওড়া জেলার লিলুয়া থানা এলাকার বাসিন্দা। এদের বিরুদ্ধে আগে থেকেই পুলিশের কাছে প্রচুর অভিযোগ রয়েছে। ঘাটাল মহকুমা পুলিশের একটি সূত্র দাবি করেছে ঘাটালের তিনটি থানা এলাকার ছিনতাই, রাহাজানি ও কেপমারীর ঘটনায় মহকুমা এলাকার বাইরের দুষ্কৃতীদের ভূমিকা বারবার লক্ষ্য করা গেছে। পূজার আগে ফের তারা সক্রিয় হচ্ছে। তবে স্থানীয় কাদের মদত বা প্রশ্রয় আছে তাও খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

- Advertisement -
Latest news
Related news