Monday, April 15, 2024

Kharagpur Job: আর্টস, কমার্স, সায়েন্স! খড়গপুর কলেজ ক্যাম্পাস থেকেই চাকরি পাচ্ছে ২০০পড়ুয়া, নিয়োগ ব্যাঙ্ক থেকে পাওয়ার প্ল্যান্টে

- Advertisement -spot_imgspot_img

নিজস্ব সংবাদদাতা: ইঞ্জিনিয়ারিং বা ম্যানেজমেন্ট কলেজ নয় খড়গপুর কলেজ ক্যাম্পাসিং থেকে চাকরি পাচ্ছেন ২০০জন পড়ুয়া। চাকরি পাচ্ছেন ব্যাংক, সফ্টওয়্যার কোম্পানি এমনকি পাওয়ার প্ল্যান্টেও। মঙ্গলবার খড়গপুর কলেজ প্রাঙ্গনে অনুষ্ঠিত হয়ে গেল একটি বিশেষ কর্মমেলা বা জবফেয়ার। ‘ক্যাম্পাস টু কর্পোরেট’ শীর্ষক সেই কর্মযজ্ঞের আয়োজক ছিল “ওয়েবেল ফুজিসফট ভারা জব ফেয়ার”। খড়গপুর কলেজের হিমাংশু ভূষণ সরকার স্মৃতি হলে এই জব ফেয়ার অর্থাৎ কর্ম মেলাতে অংশ নেওয়া প্রায় ৫০০ পড়ুয়ার মধ্যে ২০০জনকে নিজেদের প্রতিষ্ঠানে নিয়োগ করতে চলেছে বিভিন্ন ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানগুলি বলে জানানো হয়েছে ওয়েবেলের পক্ষ থেকে।

আরো খবর আপডেট মোবাইলে পেতে ক্লিক করুন এখানে

যে চারটি কোম্পানির কর্মকর্তারা এদিন নিজেদের প্রতিষ্ঠানের জন্য কর্মীর খোঁজে এসেছিলেন তারা হল ভিভো মোবাইল ফোন, বন্ধন ব্যাংক, উড়ান এবং মনিকরন পাওয়ার লিমিটেড কোম্পানি। পড়ুয়াদের সঙ্গে ক্যাম্পাসিংয়ে অংশ নিয়েছেন অনির্বান চৌধুরী(ওয়েবেল), অনির্বান ব্যানার্জি (ওয়েবেল), অভিষেক দাস (ওয়েবেল), দেবযানী দে (ওয়েবেল), সৌম্যদিপ চক্রবর্তী(উড়ান), প্রণব সারণ (উড়ান), এম.ভি.সতীশ কুমার( মনিকরণ), এবং ভিভো ও বন্ধন ব্যাংক এর পক্ষ থেকে অরুন কুমার ও সৌরভ দের মত প্রাতিষ্ঠানিক আধিকারিকরা।কলেজের বিএ, বি.এস.সি, বি.কম অনার্স ও জেনারেল, বিসিএ ষষ্ঠ সেমিস্টার এবং পোষ্ট গ্র্যাজুয়েট চতুর্থ সেমিস্টার মিলিয়ে মোট ৪৭৮ জন ছাত্রছাত্রী ক্যাম্পাসিং এ অংশগ্রহণ করে। কলেজের বিভিন্ন কক্ষে বিভিন্ন কোম্পানির পক্ষ থেকে আলাদা আলাদা করে ছাত্রছাত্রীদের ইন্টারভিউ নেওয়া হয়। কোম্পানীর চাহিদা অনুযায়ী যদি ছাত্রছাত্রীরা তাঁদের ইন্টারভিউতে সফলতা পায় তাহলে কমবেশি ২০০ পড়ুয়া চাকরী পেতে পারেন বলে জানিয়েছেন কলেজের অধ্যক্ষ ডক্টর বিদ্যুৎ কুমার সামন্ত।

এদিনের অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন অধ্যক্ষ ডক্টর বিদ্যুৎ কুমার সামন্ত। উপস্থিত ছিলেন কলেজের ক্যারিয়ার কাউন্সিলিং ট্রেনিং এন্ড পেলেসমেন্ট সেলের আহবায়ক অধ্যাপক মহাদেব মুখার্জি, গভর্নিংবডির সদস্য রবীন্দ্রনাথ চংদার, ডক্টর সুজিত মণ্ডল, ডক্টর তপন পাল,ডক্টর শুক্লা সাহা মন্ডল, অভিজিৎ প্রধান, ডক্টর বিকাশ কুমার ঘোষ প্রমুখ। অধ্যক্ষ ডক্টর সামন্ত জানান, ” যুগের চাহিদার সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে আমাদের কলেজও চেষ্টা করছে প্রথাগত পাঠদানের পাশাপাশি কর্মমুখী পাঠেরও। আর সেটা অনেকটাই ঠিকঠাক পথে যে এগুচ্ছে তারই প্রমাণ আমাদের কলেজের পড়ুয়াদের প্রতি বিভিন্ন শিল্প প্রতিষ্ঠানগুলির আগ্রহ। সাধারণভাবে কলেজগুলোতে এধরনের ক্যাম্পাসিংয়ের নজির খুবই বিরল। আমরা চেষ্টা করছি পড়ুয়াদের জন্য আরও বেশি বেশি কর্মসংস্থানের সুযোগ করে দেওয়ার জন্য।”

- Advertisement -
Latest news
Related news