Monday, April 15, 2024

Avishek In Halida: হলদিয়ায় ঘুরে ফিরে সেই শুভেন্দুরই ছায়া দেখলেন অভিষেক! ওয়ান পার্সেন্ট বিচারককে নিয়েও চাপে তৃনমূলের সর্বভারতীয় নেতা

- Advertisement -spot_imgspot_img

নিজস্ব সংবাদদাতা: রাজনৈতিক জীবনের হলদিয়ার
প্রথম সভা করতে এসেছিলেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। ২০১১ পরবর্তীতে হলদিয়ার ঠিকাদারি শুভেন্দু অধিকারীকে দিয়ে দেওয়ায় তাঁর হলদিয়া আসার প্রয়োজন হয়নি। এখন শুভেন্দু উত্তর পূর্বে হলদিয়ার দায়িত্ব নিজের কাঁধে তুলে নেওয়ার জন্যই মূলতঃ হলদিয়ায় আসা কিন্তু সেই শুভেন্দু অধিকারীই যেন তাড়া করে ফিরল তাঁকে আর সেই শুভেন্দুর ওপর গায়ের জ্বালা মেটাতে গিয়ে দেশের বিচারব্যবস্থাকেই প্রশ্নের মুখে ফেলে দিলেন তৃণমূল নেতা অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। শুভেন্দুর বিরুদ্ধে রাজ্য সরকারের দায়ের করা একাধিক মামলার তদন্তে স্থগিতাদেশ দেওয়ায় কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতিকে ‘তল্পিবাহক’ বলে কটাক্ষ করলেন তিনি। শনিবার হলদিয়ার রানীচক সংহতি ময়দানে অনুষ্ঠিত তৃণমূলের শ্রমিক সমাবেশের মঞ্চ থেকে বিচারব্যবস্থাকে আক্রমণ করেন অভিষেক। যদিও তাঁর আক্রমনের লক্ষ্য ছিল মাত্র এক শতাংশ বিচারক।

আরো খবর আপডেট মোবাইলে পেতে ক্লিক করুন এখানে

শনিবার শ্রমিক সমাবেশে ভিড় হয়েছে নজরকাড়া। সমাবেশে উপস্থিত সব্বাই ‘শ্রমিক’ কিনা জানা না থাকলেও মানুষ এসেছে বাস, ট্রেকার, ম্যাটাডোর উপচেই। সেই সমাবেশ থেকে শ্রমিকদের আশ্বস্ত করে তৃণমূলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক বলেছেন, তৃনমূলের মধ্যে থাকা ঠিকাদারি দাপট তিনি নিঃশেষিত করবেনই। বলেছেন, একই সাথে ঠিকাদারি আর তৃনমূল করা চলবেনা। বলছেন ঠিকাদারি করতে হলে ছাড়তে হবে তৃনমূলের ঝান্ডা। হলদিয়ার কিছু তৃনমূল নেতাই ঠিকাদার আর তাদের পাল্লায় পড়ে হলদিয়ার শ্রমিকদের জীবন যে নরক হয়ে যাচ্ছে এটা অনুধাবন করেই হয়ত ঠিকাদারদের কাছ থেকে দূরত্ব তৈরি করতে চাইছেন দলের।

এটা ঘটনা যে হলদিয়ায় তৃনমূলের এই ঠিকাদারিকরন শুরুই হয়েছিল শুভেন্দু অধিকারীর আমলে, হয়ত তাঁর প্রশ্রয়েই। তো এককালের সেই শুভেন্দু নিয়ন্ত্রিত পুরসভার কার্যকলাপ উল্লেখ করে অভিষেক বলেন, ‘এখানে পৌরসভায় যা ইচ্ছা তাই করেছে। কেস হয়েছে। কেস পরবর্তীতে হাইকোর্ট সিবিআইকে ট্রান্সফার করে দিয়েছে। আমার বলতেও লজ্জা লাগে বিচারব্যবস্থায় একজন দু’জন এমন আছে যারা সম্পূর্ণ তল্পিবাহক হিসাবে কাজ করছে। ওয়ান পার্সেন্ট। কিছু হলেই তারা সিবিআই দিয়ে দিচ্ছে। মার্ডার কেসে তদন্তে স্থগিতাদেশ দিয়ে দিচ্ছে। কখনও শুনেছেন?’

এরপরই বিচারপতির উদ্দেশ্যে অভিষেকের বক্তব্য, ‘আপনি প্রোটেকশন দিতে পারেন, কিন্তু মার্ডার কেসের ইনভেস্টিগেশনে স্টে দিতে পারেন না। আর যদি মনে করেন ব্যবস্থা নেবেন। আমি এরকম সত্যিকথা ১০০০০ বার বলব।” উল্লেখ্য পূর্ব মেদিনীপুরে শুভেন্দু অধিকারীর বিরুদ্ধে দায়ের ৫টি মামলার তদন্তে স্থগিতাদেশ জারি করে কলকাতা হাইকোর্টের সিঙ্গল বেঞ্চ। সেই রায়কে চ্যালেঞ্জ করে ডিভিশন বেঞ্চে হারে রাজ্য সরকার। এর পর সুপ্রিম কোর্টে মামলা করে তারা। কিন্তু সুপ্রিম কোর্ট রাজ্য সরকারের আবেদন খারিজ করে মামলাটি হাইকোর্টে ফেরত পাঠিয়ে দেয়।

তবে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিচার ব্যবস্থার প্রতি এই উষ্মা কেবলই কী শুভেন্দু নাকি সাম্প্রতিক কালে স্কুল সার্ভিস কমিশন নিয়ে রাজ্যের মন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়, পরেশ অধিকারীরা নাজেহাল হয়েছেন হাইকোর্টে। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় স্বয়ং এ বিষয়ে এখনও অবধি নীরব থাকলেও অভিষেকের গলায় কী সেই ঘটনারও সমালোচনা? এদিন যেমন অভিষেক আগামী ৩ মাসের মধ্যেই শ্রমিকদের চার্টার অফ ডিমান্ড বিষয়টির নিষ্পত্তি করবেন বলে প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন তেমনই ফিরে এসেছেন শুভেন্দু অধিকারীর সমর্থক দাদার অনুগামীতে। এমনকি সভাস্থলে যে ২০/২৫জন দাদার অনুগামী আছেন এও হলফ করে বলেছেন তিনি। আর সবকিছুর মধ্যেই ঘন্টা দেড়েকের হলদিয়া সফরে যেন তাঁকে তাড়া করে ফিরেছে শুভেন্দু অধিকারীর ছায়া।

- Advertisement -
Latest news
Related news