Monday, May 20, 2024

মেদিনীপুরে নৃশংস ভাবে পিটিয়ে মারা হল সুস্থ কুকুরকে! প্রতিবাদ করতে গিয়ে হেনস্থর শিকার পশুপ্রেমীরা, বেঁধে পেটানোর হুমকি

A healthy dog ​​was brutally beaten to death. The animal was not released even after eyes coming out. Even then he was beaten to death in front of everyone's eyes. Upon receiving the news of this incident on Sunday morning, a group of animal lovers ran away from Medinipur city. It is alleged that the group, including two women, was also harassed. They were even threatened with being tied up and beaten. Kotwali police rushed to the spot after receiving information about the incident. The animal-loving group was able to leave the area under the control of the police. The incident took place at Keranichati near Medinipur city. Animal lovers said, 'This morning, when the dog was inside the market, a man suddenly hit him on the waist with a bamboo. When the dog fell, he was beaten to death. Even then the dog came up on the crowded streets hoping for human help. After that he passed the fruit-bearing hall. The idiots beat the dog further and killed it. They did not give up even after Kukuti's eyes went out due to Maar's injury. Animal lovers complain, "At first they said the dog was crazy, but when they realized that they had been caught lying, they grabbed the real idol and said, 'I've killed a lot.'

- Advertisement -spot_imgspot_img

নিজস্ব সংবাদদাতা: নৃশংস ভাবে পিটিয়ে মারা হল একটি সুস্থ কুকুরকে। মেরে মেরে চোখ ফেটে বেরিয়ে আসার পরও রেহাই দেওয়া হয়নি পশুটিকে। তারপরও পিটিয়ে পিটিয়ে মেরা ফেলা হয় সবার চোখের সামনে। রবিবার সকাল বেলায় এই ঘটনার খবর পেয়েই মেদিনীপুর শহর থেকে ছুটে যায় পশুপ্রেমীদের একটি দল।

আরো খবর আপডেট মোবাইলে পেতে ক্লিক করুন এখানে
মারা হচ্ছে কুকুটিকে

২মহিলা সহ ওই পশুপ্রেমী দলটিকেও ব্যাপক হেনস্থা করা হয় বলে অভিযোগ। এমনকি তাঁদের বেঁধে রেখে পেটোনোর হুমকি দেওয়া হতে থাকে। ঘটনার খবর পেয়েই ছুটে যায় কোতোয়ালি থানার পুলিশ। কার্যত পুলিশের ঘেরাটোপেই এলাকা ছাড়তে সক্ষম হন ওই পশুপ্রেমী দলটি। ঘটনাটি ঘটেছে মেদিনীপুর শহর লাগোয়া কেরানীচটিতে।

মেদিনীপুরের বিশিষ্ট পশুপ্রেমী শিবু রানা জানিয়েছেন, ‘সকাল ১০টা নাগাদ স্থানীয় সূত্রে আমরা খবর পাই একটি কুকুরকে নৃশংসভাবে পিটিয়ে মারছে ২ব্যক্তি। সেই ঘটনার ভিডিও এসে পৌঁছায় আমাদের কাছে। এরপর আমরা চারজনের একটি দল সেখানে পৌছাই।

পশুপ্রেমীদের ঘিরে হুমকি

আমি ছাড়াও ছিলেন ঋক চৌধুরী, রিমা কর্মকার ও মৌমিতা জোয়ারদার কেরানীচটিতে পৌঁছাই। যে দুজন মূলত ওই কুকুরকে মারে তাঁরা প্রথমে বলে যে, কুকুরটি পাগল হয়ে গেছিল এবং অনেককে কামড়ে ছিল তাই পিটিয়ে মেরেছি। কাদের কামড়েছে জানতে চাওয়া হলে যারা প্রথমে বলেছিল স্থানীয় লোককে কামড়েছিল তারা এবার বলে বাইরের ২জনকে কামড়েছিল। তারা এখানে নেই।’

পশুপ্রেমী ঋক চৌধুরী জানান, ‘আমরা স্থানীয় ব্যক্তিদের কাছে খোঁজ নিয়ে জানতে পারি কুকুরটি কাউকেই কামড়ায় নি। তাছাড়া গত ৬মাসের মধ্যে ওই এলাকায় কুকুর কামড়ানোর ঘটনাই ঘটেনি। ৬মাস আগে একটি কুকুর কয়েকজনকে কামড়েছিল তাকে পিটিয়ে মারা হয়েছিল। তারপর এখানকার কাউকেই কুকুর কামড়ায়নি বলে স্থানীয় মানুষজন জানিয়েছেন।’ পশুপ্রেমী দলটির এক সদস্য জানান, আমরা জানতে পেরেছি এই কুকুরটি এখানকার একটি ফলওয়ালার বেড়ালকে কামড়ে ছিল কিন্তু সে বেড়ালটাও বর্তমানে ভালো রয়েছে। তখন থেকেই ওরা কুকুরটিকে পিটিয়ে মারার পরিকল্পনা করে।

আজ সকালবেলায় কুকুরটি যখন বাজারের ভেতরের দিকে ছিল তখন এক ব্যক্তি হঠাৎ একটি বাঁশ নিয়ে তার কোমরে মারে। কুকুরটি পড়ে গেলে তাকে পেটাতে পেটাতে আধমরা করে দেয়। তারপরও কুকুরটি জনবহুল রাস্তায় উঠে আসে মানুষের সাহায্য পাওয়ার আশায়। এরপরই ওই ফলওয়ালা আসরে উত্তীর্ণ হয়। আধমরা কুকুরটিকে আরও পিটিয়ে পিটিয়ে মেরে ফেলে। মারের চোটে মুখ ফেটে কুকুটির চোখ বাইরে বেরিয়ে যাওয়ার পরও রেহাই দেয়নি ওরা। পশুপ্রেমীদের অভিযোগ, ‘যখন ওরা বুঝতে পারে যে ওদের মিথ্যা ধরা পড়ে গেছে তখনই ওরা আসল মূর্তি ধরে এবং বলে বেশ করেছি মেরেছি।’

পশুপ্রেমী দলটির অভিযোগ স্থানীয় এক পঞ্চায়েত সদস্য আমাদের বিরুদ্ধে আরও ক্ষেপিয়ে তোলেন স্থানীয়দের একটি অংশকে। এরপরই ওই ফলওয়ালা এবং অন্য যে ব্যক্তি কুকুরটিকে পিটিয়ে মেরেছিল আমাদের ঘিরে ধরে। ঠেলাঠেলি, গায়ে ধাক্কা দিতে থাকে। হুমকি দেয় আমাদের বেঁধে পেটানো হবে বলে। তখন আমরা পুলিশকে ফোন করি। পুলিশ আসার পরে কোনও রকমে এলাকা ছাড়ি।

- Advertisement -
Latest news
Related news