Monday, April 15, 2024

CBI Tapan Roy: এবার কী মন্ত্রী অরূপের গ্রেফতারের পালা? তেমনই দাবি পরিবেশ শহিদ তপন দত্তের স্ত্রীর

- Advertisement -spot_imgspot_img

নিজস্ব সংবাদদাতাঃ পরিবেশ শহিদ ও তৃনমূল নেতা তপন দত্ত খুনের মামলা শেষ করে দিয়েছিল রাজ্যের গোয়েন্দা দপ্তর সিআইডি। রাজ্যের মন্ত্রী অরূপ রায় সহ মোট ১৩ জন অভিযুক্ত ছিলেন এই মামলায়। ৯ জনের নাম চার্জশিট থেকে তুলে নেওয়া হয়েছিল আর বাকিরা বেকসুর খালাস পেয়েগেছিল! সব দেখে শুনে হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতি রাজশেখর মান্থা বলছিলেন, এতো ঠাকুরঘরে কে, আমি তো কলা খাইনির মতো ঘটনা।

আরো খবর আপডেট মোবাইলে পেতে ক্লিক করুন এখানে

কারন তপন দত্ত খুনের চার্জশিট দেখে হতবাক হয়ে যান  বিচারক। প্রথম চার্জশিটে যাদের নাম ছিল দ্বিতীয় চার্জশিটে তাদের নাম পাওয়া যায়নি। এর পরই ঘটনায় তদন্তের অগ্রগতি নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করেন বিচারপতি। কিন্তু লড়াইটা ফিরিয়ে আনলেন তপন দত্তের স্ত্রী প্রতিমা দত্ত। তাঁর স্বামীর খুনের মামলায় বহাল রইল সিবিআই তদন্তের নির্দেশ। আর তার ফলে ফের নতুন করে এফ আই আর দায়ের করতে চলেছে সিবিআই (CBI)।

শুক্রবার এই রায় হওয়ার পর প্রতিমা দত্ত বলেছেন, আমার স্বামীর হত্যাকারীরা সাজা পাবেই। সাজা পাবেই রাজ্যের মন্ত্রী অরূপ দত্ত। উল্লেখ্য এসএসসি মামলায় ইতিমধ্যেই জেলে রয়েছেন রাজ্যের প্রাক্তন মন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়। এবার সেই জেলের পথেই কী হাঁটতে চলেছেন রাজ্যের মন্ত্রী অরূপ রায়ও? এখন এটাই লাখ টাকার প্রশ্ন। উল্লেখ্য গত ৯ জুন এই মামলায় সিবিআই তদন্তের নির্দেশ দিয়েছিলেন প্রধান বিচারপতি রাজশেখর মান্থার সিঙ্গেল বেঞ্চ। সেই রায়কে চ্যালেঞ্জ করে রাজ্য ডিভিশন বেঞ্চে আপিল করে। শুক্রবার সিবিআই তদন্তের নির্দেশই বহাল রাখল কলকাতা হাইকোর্টের দুই বিচারপতি প্রকাশ শ্রীবাস্তব এবং বিচারপতি রাজর্ষি ভরদ্বাজের ডিভিশন বেঞ্চ।

উল্লেখ্য ২০১১ সালের ৬ মে খুন পরিবেশ কর্মী তপন দত্ত। খুব কাছ থেকে গুলি করে খুন করা হয়েছিল তপন দত্তকে। খুনের ঘটনায় নাম জড়ায় তৃণমূলের স্থানীয় নেতা কর্মী-সহ ১৩ জনের। প্রতিমা দত্ত অভিযোগ করেছিলেন জলাভূমি ভরাট করে প্রচুর টাকা উপার্জন করছিলেন মন্ত্রী অরূপ রায় ও তাঁর দলবল। রাজ্য সেই খুনের তদন্তভার দেয় সিআইডিকে। ওই বছরই অগস্টে চার্জশিট পেশ করে সিআইডি। সিআইডি জানায়, জলাজমি ভরাটের বিরুদ্ধে আন্দোলন করছিলেন তপন দত্ত। আর তাই তাঁকে খুন করা হয়। কিন্তু তারপর অদ্ভুতভাবেই ফের আরেকটি চার্জশিট পেশ করে ৯ জনের নাম বাদ দেওয়া হয়। তারপর নিম্ন আদালতে বেকসুর খালাস পেয়ে যান বাকিরা। যার পাল্টা হাইকোর্টের দ্বারস্থ হন তপন দত্তের স্ত্রী প্রতিমা দত্ত। খুনের ঘটনার ১১ বছর পর সিবিআইকে তদন্তের নির্দেশ দেয় আদালত। সিঙ্গল বেঞ্চ সেই রায় দেয়। এরই বিরুদ্ধে ডিভিশন বেঞ্চে গেছিল রাজ্য।

এদিন ডিভিশন বেঞ্চের রায়দানের পর তপন দত্তের স্ত্রী প্রতিমা দত্ত জানান, তিনি খুশি। খুনের ঘটনায় অন্যতম চক্রান্তকারী হিসেবে মন্ত্রী অরূপ রায়ের দিকেই অভিযোগের আঙুল তোলেন তিনি। বলেন, মন্ত্রী এবং এই ঘটনায় যুক্ত সবাই শাস্তি পাবে। তিনি আশাবাদী এই ব্যাপারে। ভয় না পেয়ে এতদিন ধরে যে লড়াই চালিয়ে আসছেন, তার সুফল মিলছে। সিবিআই তদন্তকারীরা সহযোগিতা করছেন। উল্লেখ্য এই মামলায় প্রতিমা দত্তের হয়ে আদালতে লড়েছেন এসএসসি দুর্নীতি মামলার আইনজীবী বিকাশ ভটটাচার্য।

- Advertisement -
Latest news
Related news