Monday, May 20, 2024

Vande Bharat Express : হাওড়া থেকে রাঁচি যেতে সময় লাগবে মাত্র ৩ঘন্টা! আর মাত্র কয়েক মাস চালু হচ্ছে ভারতের অন্যতম দ্রুতগতির বন্দেভারত এক্সপ্রেস

- Advertisement -spot_imgspot_img

নিজস্ব সংবাদদাতা: যাঁরা ইন্টারসিটি শতাব্দী এক্সপ্রেসে যাতায়াত করেন তাঁদেরকে হাওড়া থেকে রাঁচি বা বিপরীতমুখী পথে যেতে বর্তমান ৮ঘন্টা সময় ব্যয় করতে হয়। আর সেই পথ মাত্র ৩ঘন্টায় পৌঁছে যাবে বন্দেভারত এক্সপ্রেস। এই যুগান্তকারী বিপ্লবটি সাধিত হতে চলেছে আগামী বছরের গোড়াতেই যার অর্থ আর মাত্র কয়েকমাসের অপেক্ষা। জানা যাচ্ছে ভারতীয় রেল বোর্ড ইতিমধ্যেই এই দুই শহরের মধ্যে বন্দেভারত এক্সপ্রেস চালানোর সিদ্ধান্ত নিয়েও ফেলেছে। আর তারফলে এবার এই ৪০০কিলোমিটার রাস্তা হতে চলেছে অত্যন্ত আসান। এই দ্রুতগতির ট্রেনটি একই দিনে হাওড়া থেকে ছেড়ে ওই দিন ফের হাওড়া ফিরে আসবে এমনই জানা গেছে।

আরো খবর আপডেট মোবাইলে পেতে ক্লিক করুন এখানে

বন্দে ভারত এক্সপ্রেসের অপর নাম TRAIN 18. বছর দুয়েক আগেই এই প্রক্রিয়া শুরু হয়েছিল যখন রেলমন্ত্রক কলকাতা ও রাঁচি শহরের মধ্যে যোগাযোগের জন্য বন্দে ভারত এক্সপ্রেস চালানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছিল। কথা বলা হয়েছে পূর্ব রেল ও দক্ষিণ পূর্ব রেলের সঙ্গে। সকালে হাওড়া থেকে ছাড়বে আবার রাতে হাওড়া ফিরে আসবে বলেই রুট টাইম বা শিডিউল প্রস্তুত করা হয়েছে।
পূর্ব রেল থেকে দক্ষিণ পূর্ব রেলের যে পথ ধরে ছুটবে বন্দেভারত এক্সপ্রেস সেখানে ১৯৯.৩ কিমি থেকে ২০৪.৫ কিমি গতিতে রেল ছুটতে পারে। তবে নিয়মানুযায়ী সাধারণত রেলের গতি বাঁধা থাকবে ১১০ কিমি থেকে ১৩০ কিমি মধ্যে। গোটা যাত্রা পথে পূর্ব রেলের নিয়ন্ত্রণে থাকবে টার্মিনাল স্টেশন হাওড়া সহ ৫ স্টেশন। দক্ষিণ পূর্ব রেলের থাকবে টার্মিনাল স্টেশন রাঁচি সহ ৬ স্টেশন।

পূর্ব রেলের স্টেশনগুলি হল হাওড়া, ডানকুনি, খানা, অন্ডাল, কালিপাহাড়ি। আর দক্ষিণ পূর্ব রেলের নিয়ন্ত্রণে থাকবে মোহনা, আনারা, পুরুলিয়া, কোটশিলা, মুরী ও রাঁচি স্টেশন। এর মধ্যে হাওড়া থেকে পুরুলিয়া অবধি ট্রেন ছুটবে ১৩০ কিমি গতিতে। পুরুলিয়া থেকে রাঁচি ট্রেন ছুটবে ১১০ কিমি গতিতে। সাধারণত বন্দে ভারত এক্সপ্রেসে একাধিক স্টপেজ থাকে না। তাই হাওড়া থেকে রাঁচি বন্দেভারত বা TRAIN 18 এক্সপ্রেস ছুটলেও আদপে কটা স্টেশন দেওয়া হবে, কত মিনিটের স্টপেজ গ্যাপ দেওয়া হবে, তা নিয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়নি।

এই ট্রেনটির যাত্রাপথের জন্য বিশেষভাবে দায়িত্ব প্রাপ্ত এক আধিকারিক জানিয়েছেন, “হাওড়া-রাঁচি অত্যন্ত লাভজনক রুট। যাত্রী পাওয়া যাবে। যেহেতু শিল্পাঞ্চলের একটা অংশ কানেক্ট করা যাবে তাই যাত্রী পেতে অসুবিধা হবে না। তবে এর সঙ্গে টেকনিক্যাল অনেক বিষয় জড়িত থাকে৷ বিশেষ করে ট্যাক রক্ষণাবেক্ষণ ও সিগন্যাল ব্যবস্থা দেখা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। সেমি হাইস্পিড ট্রেন হওয়ার জন্য সেফটিও অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।”

ইতিমধ্যেই ৫৬ রেক প্রস্তুত হয়েছে বন্দে ভারত এক্সপ্রেসের। তা থেকেই ট্রেন সেট হাওড়ায় আসবে বলে রেল সূত্রে খবর। গত কয়েকমাস ধরেই রেলের পদস্থ আধিকারিক ও ইঞ্জিনিয়াররা বন্দেভারত এক্সপ্রেসের সম্ভাব্য পথটি পর্যবেক্ষণ করছেন। উচ্চস্তরের ইস্পাতের ট্রাক নিশ্চিত করা হচ্ছে বন্দে ভারত এক্সপ্রেসের যাত্রা পথের জন্য। ১৬টি বাতানুকূল কোচ থাকছে যেখানে এক্সিকিউটিভ ও নন-এক্সিকিউটিভ চেয়ারকার থাকবে। রেল সূত্রে জানা যাচ্ছে শতাব্দী এক্সপ্রেসের বর্তমান ভাড়ার চাইতে অন্ততঃ ৪০ থেকে ৫০শতাংশ ভাড়া বেশি হবে এই দ্রুতগতির ট্রেনটির। এই গতিবহুল ট্রেনের অপেক্ষায় এখন দুই শহরের ব্যস্ততম ব্যবসায়ী থেকে নিত্য যাত্রীরা।

- Advertisement -
Latest news
Related news