Tuesday, April 16, 2024

Kharagpur Crime: সকালের পর রাতেও ছিনতাই খড়গপুর শহরে! এবার মহিলার ২ লাখি হার ছিনিয়ে নিয়ে গেল দুষ্কৃতি

In the same city on the same day two snatches! The distance is 3 kilometers. Monday morning at seven in the morning after the night malancha subhasapally kharagapur city! In the morning snatching is more than 6 lakh rupees from a manager of a business man of golbazar and at night snatching is around 2 lakh rupees. The time interval between the two events is 14 hours. The incident took place on Monday night in an lane adjacent to Kharida Malancha State Road in Kharagpur town. It is known a housewife named Malli Veena went to Golbazar with her sister. From there, after seeing Mata Puja in Malanche area, he hit a Toto and landed in front of a bank in Malach area of ​​Kharagpur city. A short walk from here is to enter her flat. It was 9:15 at night. Just like when Malli Veena leaves the highway to go to her flat and goes down the aisle, one of the miscreants grabs the precious gold mangalsutra from behind and snatches it from behind. When she tried to stop her, he pushed her and her sister away and hit a bike and fled towards Senchak.

- Advertisement -spot_imgspot_img

নিজস্ব সংবাদদাতা: একই দিনে একই শহরের
দুটি ছিনতাই! ব্যবধান ৩ কিলোমিটার। সোমবার সাত সকালেই খড়গপুর শহরের সুভাষপল্লীর পর রাতে মালঞ্চ! সকালে ছিনতাই ৬ লক্ষাধিক টাকা আর রাতে ছিনতাই প্রায় ২লাখ টাকার হার। দুটি ঘটনার মধ্যে সময়ের ব্যবধান ১৪ ঘন্টা। সোমবার রাতে ঘটনাটি ঘটেছে খড়গপুর শহরের খরিদা মালঞ্চ রাজ্য সড়ক লাগোয়া একটি গলিপথে। জানা গেছে  মাল্লি বীণা নামে এক গৃহবধূ তাঁর বোনকে নিয়ে গোলবাজার গিয়েছিলেন। সেখান থেকে মালঞ্চ এলাকায় মাতা পুজা দেখে একটি টোটোতে চেপে খড়গপুর শহরের মালঞ্চ এলাকায় একটি ব্যাঙ্কের সামনে নামেন। এখান থেকে সামান্য পথটুকু হেঁটেই তাঁর ফ্ল্যাটে ঢোকার কথা। রাত তখন পৌনে ৯টা।

আরো খবর আপডেট মোবাইলে পেতে ক্লিক করুন এখানে

সেই মত মল্লি বীনা যখন নিজের ফ্ল্যাটে যাওয়ার জন্য রাজপথ ছেড়ে গলিপথে নামার সঙ্গে সঙ্গে এক দুষ্কৃতী পেছন থেকে তাঁর গলায় পরে থাকা বহুমূল্যের সোনার মঙ্গলসূত্র ধরে টান মেরে ছিনিয়ে নেয়। তখন বাধা দিতে গেলে তাঁকে ও তাঁর বোনকে ধাক্কা মেরে ফেলে দিয়ে একটি বাইকে চেপে সেনচকের দিকে পালায়। এদিকে ঘটনার পর রীতিমতো আতঙ্কিত হয়ে পড়েন তিনি। খবর পেয়ে তাঁর রেলকর্মী স্বামী ঘটনাস্থলে পৌঁছে যান। জানা গেছে ছিনিয়ে নেওয়া ওই চার ভরি হারটি আসলে সোনার তৈরী একটি মঙ্গলসূত্র। সোমবার রাতেই ওই গৃহবধূ নামে খড়গপুর টাউন থানায় অভিযোগ দায়ের করেন।

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে ঘটনার তদন্ত শুরু হয়েছে। ওই এলাকার কয়েকটি ব্যাঙ্ক থাকায় সেগুলোর সিসিটিভি ক্যামেরার ফুটেজ খতিয়ে দেখছে পুলিশ। খড়গপুর টাউন থানার ভারপ্রাপ্ত আধিকারিক বিশ্বরঞ্জন বন্দ্যোপাধ্যায় দৃঢ়তার সঙ্গে জানিয়েছেন, ঘটনার পরই তৎপরতার সঙ্গে তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ। আশা করা হচ্ছে দ্রুত এই ঘটনার কিনারা হবে। জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (খড়গপুর) রানা মুখোপাধ্যায় জানিয়েছেন, “দুটি ছিনতাইয়ের ঘটনার তদন্ত শুরু হয়েছে। সিসিটিভি ফুটেজ খতিয়ে দেখা হচ্ছে।” ঘটনাটি ঘটার সময় আশেপাশে জনসমাগম ছিল অথচ সেই সব মানুষদের অনেকেই ঘটনাটি দেখার পরও কোনোও সাহায্য করতে এগিয়ে আসেননি বলে ওই মহিলা ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন।

খড়গপুর শহরের ১৪ ঘন্টার ব্যবধানে পরপর দুটি ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটে যাওয়ায় শহরের নিরাপত্তা নিয়ে বড়সড় প্রশ্নচিহ্ন তৈরি হয়েছে। প্রশ্ন উঠেছে পুলিশের টহলদারি নিয়ে। সকালে শহরের সুভাষপল্লী এলাকায় জনকল্যাণ স্কুলের সামনে লোকালয়ের মধ্যে এক পাইকারি ব্যবসায়ীর হিসাবরক্ষকের কাছ থেকে ছয় লক্ষাধিক টাকা ছিনতাই। তারপর রাত পৌনে নয়টা নাগাদ লোকজনের সামনে এক মহিলার সোনার তৈরি মঙ্গলসূত্র ছিনতাইয়ের ঘঢল। ফলে পুলিশের চাপ বাড়ছে। মাত্র কয়েকদিন আগেই ইন্দা এলাকায় এক কিশোরীর মোবাইল ছিনতাইয়ের ঘটনা কিনারা করেছিল পুলিশ। গ্রেফতার হয়েছিল দুই দুষ্কৃতি। এখন পুলিশ এই দুটি ঘটনার কিনারা কত দ্রুত করতে পারে সেদিকেই তাকিয়ে খড়গপুর শহর।

- Advertisement -
Latest news
Related news