Monday, June 17, 2024

Ghatal Students protest: টাকা দিলেই মিলবে মার্কশিট! দেবের কলেজের সামনে রাজ্য সড়ক অবরোধ করল পড়ুয়ারা

- Advertisement -spot_imgspot_img

নিজস্ব সংবাদদাতা: মার্কশিট পেতে গেলে দিতে হবে টাকা। কলেজের পরীক্ষার ফল প্রকাশের পর মার্কসশিট নিতে কলেজ কর্তৃপক্ষের এই দাবির বিরুদ্ধে পথে নামলেন পাশ করা পঞ্চম ও ষষ্ঠ সেমিস্টারের কলেজ পড়ুয়াদের। পশ্চিম মেদিনীপুর কলেজ কতৃপক্ষের ফতোয়া জারি পঞ্চম সেমিস্টারে এক হাজার, ষষ্ট সেমিস্টারে দুহাজার টাকা দিলেই তবেই হাতে মিলবে মার্কস সীট।

আরো খবর আপডেট মোবাইলে পেতে ক্লিক করুন এখানে
এভাবেই দেবের ছবি লাগিয়ে অর্থের অপচয়ের অভিযোগ পড়ুয়াদের

এমন তুঘলকি সিদ্ধান্তের তীব্র প্রতিবাদ জানিয়ে কলেজ গেটের সামনে রাজ্য সড়ক অবরোধ সহ বিক্ষোভ দেখালো দীর্ঘক্ষন এমন পড়ুয়ারা। পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার ঘাটাল রবীন্দ্র শতবার্ষিকী মহাবিদ্যালয় কলেজ কর্তৃপক্ষর জারি করা এ হেন বিজ্ঞপ্তির বিরুদ্ধে ক্ষোভে ফেটে পড়ল কলেজ পড়ুয়ারা। তাঁদের অভিযোগ কলেজ চত্বরে এরকম একটি বিজ্ঞপ্তি টাঙিয়ে সেই টাকা জোর পূর্বক বেআইনিভাবে আদায় করার অভিযোগ তুলেছেন কলেজ কর্তৃপক্ষ।

হালে এই কলেজের গভর্নিংবডির সর্বেসর্বা করা হয়েছে সাংসদ তথা অভিনেতা দেবকে। কলেজের গেটে ঢাউস করে টাঙানো তাঁর প্রতিকৃতি। সেই কলেজের সামনে রাজ্য সড়ক অবরোধ করে বসে পড়েন ছাত্রছাত্রীরা। ফলে তড়িঘড়ি ছুটে আসে প্রশাসন। বিক্ষোভরত পড়ুয়াদের বক্তব্য, যেখানে করোনা কালে ক্লাশ হয়নি। কলেজের বিদ্যুৎ থেকে শুরু করে ল্যাব, লাইব্রেরি কিছুই ব্যবহার হয়নি সেখানে কলেজ কর্তৃপক্ষ টাকা নেবেন কেন?

সুনিতা রায়, সুমনা পাল, সুমন মন্ডল প্রভৃতি পড়ুয়ারা বলেন, “গত দেড় বছর শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ। তাসত্ত্বেও ভর্তি ফিজ, উন্নয়ন ফিজ, পরীক্ষা ফিজ নিয়েই আমাদের পরীক্ষায় বসার ফর্ম ফিলাপ সহ রেজিস্ট্রেশান করানো হয়। এখন দাবী করা হচ্ছে বিদ্যুৎ, টেলিফোন, সাইকেল স্ট্যান্ড, লাইব্রেরি সহ ছাত্র সংসদের ফিজ বাবদ ষষ্ঠ সেমিস্টারের জন্য দুবছর বাবদ দুই হাজার টাকা এবং পঞ্চম সেমিস্টারে জন্য এক হাজার টাকা দিলেই তবেই মার্কসশিট হাতে পাওয়া যাবে?” কর্তৃপক্ষর এই বিজ্ঞপ্তির প্রতিবাদ জানিয়ে কলেজ গেটের সামনে বিক্ষোভ সহ ঘাটাল রাজ্য সড়ক অবরোধ করে প্রতিবাদে সামিল হন পড়ুয়ারা।

কলেজ কর্তৃপক্ষর দাবি, করোনার জন্যই চল্লিশ শতাংশ কম টাকা নেওয়া হয়েছিল পড়ুয়াদের কাছে। কলেজ বন্ধ থাকলেও কিছু খরচ থাকে। সেলফ ফিন্যান্স কলেজে প্রচুর গেস্ট টিচার রয়েছেন নানাবিধ সাবজেক্টে। এছাড়াও রয়েছে নানা খরচ। পড়ুয়াদের কাছ থেকে ভর্তির সময় যে ৬০% টাকা নেওয়া হয়েছিল এখন দেখা যাচ্ছে খরচ তার চেয়েও বেশি হয়েছে। সেই বাড়তি খরচ ভাগ করে দেওয়া হয়েছে। পড়ুয়ারা টাকা না দিলে কলেজ চলবে কী করে?

যদিও পড়ুয়াদের বক্তব্য, খরচের আগাম হিসাব করেই ভর্তির সময় টাকা নেওয়া হয়েছে। এরপর কলেজ কর্তৃপক্ষ মনের মত খরচ করেছেন বেআইনি ভাবে। কলেজ গেটে বিরাট বিরাট আকারের দেবের ছবির কাটআউট বসানো হয়েছে। আরও অন্যান্য খাতে হিসাব বহির্ভূত খরচ হয়েছে। সেটাই এখন ছাত্রছাত্রীদের ঘাড় ভেঙে আদায় করতে চাইছে কলেজ কর্তৃপক্ষ। এই বাড়তি টাকা তারা কিছুতেই দেবেনা। পড়ুয়াদের বিক্ষোভ ও অবরোধের জেরে প্রায় দেড় ঘন্টা স্তব্ধ হয়ে যায় ঘাটাল শহর থেকে চন্দ্রকোনাগামী ব্যাস্ততম রাজ্য সড়ক। ছুটে আসে পুলিশ।

পড়ুয়াদের দাবী বিদ্যাসাগর বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের পৌঁছে দেওয়ার ব্যাবস্থা করার আশ্বাস দেন ঘাটাল থানার পুলিশ প্রসাশন। কিছু পড়ুয়া জানিয়ে দেন মার্কশিট আটকিয়ে টাকা আদায়ের বিরুদ্ধে আদালতেও যেতে পারেন তাঁরা। বলেন এমন অন্যায়ের প্রতিকার চেয়ে। প্রসাশনের হস্তক্ষেপের আশ্বাসে অবরোধ তুলে নেন পড়ুয়ারা।

- Advertisement -
Latest news
Related news