Friday, April 19, 2024

NH Fire: নারায়নগড়ে জাতীয় সড়কে গ্যাস ট্যাঙ্কারে আগুন! প্রাণে বাঁচলেন চালক খালাসি

- Advertisement -spot_imgspot_img
আগুন নিয়ন্ত্রণে আনছেন দমকল কর্মীরা

নিজস্ব সংবাদদাতা: পুড়ে ছাই হয়ে যাওয়ার কথা ছিল কিন্তু বরাত জোরে বেঁচে গেলেন চালক ও খালাসি দুজনেই। বুধবার সন্ধ্যায় পশ্চিম মেদিনীপুরের নারায়নগড় থানার অন্তর্গত ৬০নম্বর জাতীয় সড়কের ওপর মকরামপুর টোল প্লাজার কাছে একটি গ্যাস ট্যাঙ্কারে হঠাৎই আগুন ধরে যাওয়ায় পুড়ে ছাই হয়ে গেছে ইঞ্জিনের অংশটি।

আরো খবর আপডেট মোবাইলে পেতে ক্লিক করুন এখানে

ঘটনাটি ঘটেছে একেবারে টোল প্লাজার কয়েক হাতের মধ্যেই। ফলে সন্ধ্যার অন্ধকারে প্লাজার কর্মীদের সহজেই নজরে আসে গাড়ির নিচে আগুনের অস্তিত্ব। আর তাই বাঁচিয়ে দিয়েছে চালক আর খালাসিকে। নচেৎ আগুন ফাঁদে আটকে যেতেন তাঁরা। এমনটাই দাবি করেছেন প্রত্যক্ষদর্শীরা।

জানা গেছে ঘটনাটি ঘটেছে সন্ধ্যা ৬টা নাগাদ। ওই গ্যাস ট্যাঙ্কারটি ওড়িশার দিক থেকে আসছিল। খড়গপুরগামী ট্যাঙ্কারটি টোল প্লাজার টোলগেট থেকে কুড়ি/পঁচিশ হাত দুরে দাঁড়িয়ে ছিল কারন সামনে বেশ কয়েকটি গাড়ি ছিল যারা একে একে টোল টিকিট কেটে গেট পের হচ্ছিল। সেই সময় হঠাৎ এক কর্মীর নজরে পড়ে গাড়ির তলায় আগুন। সঙ্গে সঙ্গে সে সতর্ক করে গাড়ির ভেতরে থাকা চালক ও খালাসিকে। তখুনি তারা কেবিন থেকে লাফিয়ে নীচে নেমে আসে।

ওই সময় টোলপ্লাজার কর্মীরা নিজেদের অগ্নি নির্বাপনযন্ত্র নিয়ে ছুটে যান। প্ৰথমিক ভাবে আগুন নেভানোর কাজ শুরু করেন তাঁরাই। মুহুর্তের মধ্যে ফাঁকা করে দেওয়া হয় টোলপ্লাজা চত্বর। ট্যাঙ্কারে বিস্ফোরনের আশঙ্কায় সরিয়ে নেওয়া হয় সমস্ত গাড়িকে। খবর যায় খড়গপুর দমকলে। পরে তাঁরা এসেই আগুন সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণে আনেন।

দমকল কর্মীদের প্ৰথমিক অনুমান গাড়িটির ইঞ্জিন ও ব্যাটারি সংযোগের অংশে শর্টসার্কিট থেকেই
এই ঘটনা ঘটে থাকতে পারে। হয়ত আর্থিং ঠিকঠাক কাজ করছিলনা। তবে প্রশংসনীয় কাজটি করেছেন টোল প্লাজার কর্মীরা কারন দমকল এসে পৌঁছানো অবধি আগুনকে গাড়ির সামনের অংশেই আটকে রেখেছিলেন তাঁরা যা দমকল এসে পুরোপুরি কব্জায় নিয়ে আসেন।

ইঞ্জিন সহ চালকের কেবিন পুরোপুরি জ্বলে গিয়েছে। তবে রক্ষা পেয়ে গেছে ট্যাঙ্কারটি। যেখানে আগুন লেগে বিস্ফোরণ ঘটলে উড়ে যেতে পারত গোটা টোলপ্লাজাই। আর টোলপ্লাজা না হয়ে যদি মধ্য রাস্তায় এই আগুন লাগত তবে কারও নজরে পড়ার আগেই হয়ত আগুনের গ্রাসে চলে যেত কেবিন এবং অগ্নিফাঁদের আওতায় চলে যেতেন চালক ও খালাসি। সব মিলিয়ে বরাত জোরে রক্ষা পেলেন তাঁরা।

- Advertisement -
Latest news
Related news