Monday, May 20, 2024

Jagdeep Dhankhar: একবছর আগের বিনিয়োগেরই হিসাব চেয়ে পাইনি! মুখ্যমন্ত্রীর শিল্পনীতি ঘোষণাকে তুলোধোনা রাজ্যপালের

- Advertisement -spot_imgspot_img

নিজস্ব সংবাদদাতা: পানাগড় থেকে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যখন তাঁর সরকারের শিল্পবান্ধব নীতি এবং বিনিয়োগ নিয়ে বড় ঘোষণা করেছেন তখনই বোমা ফাটালেন রাজ্যের রাজ্যপাল। এর আগের
‘বাণিজ্য সম্মেলনে বিনিয়োগ সংক্রান্ত তথ্য চেয়েও পাইনি’, বললেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনকড়। ফের রাজ্যকে আক্রমণ করলেন রাজ্যপাল। রাজ্যপাল অভিযোগ করলেন এক বছর আগে বেঙ্গল গ্লোবাল বিজনেস সামিটের বিনিয়োগ সংক্রান্ত তথ্য চাইলেও রাজ্য এখনও তা পাঠায়নি। তবে ধনকড়কে পালটা দিলেন তৃণমূলের মুখপাত্র কুণাল ঘোষ।

আরো খবর আপডেট মোবাইলে পেতে ক্লিক করুন এখানে

বৃহস্পতিবারই রাজ্যের বিভিন্ন সংবাদপত্রে বেরিয়েছে রাজ্যের শিল্পভাবনা ও বিনিয়োগ নিয়ে একের পর এক খবর। যেখানে বলা হয়েছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তৃতীয়বার মুখ্যমন্ত্রী পদে শপথ নিয়ে রাজ্যবাসীর স্বার্থে একাধিক উন্নয়নমূলক প্রকল্প চালু করেছেন। পাশাপাশি তাঁর নজর রয়েছে শিল্পেও। কর্মসংস্থানে জোর দিচ্ছে রাজ্য সরকার। বুধবারই একাধারে একাধিক শিল্পতালুকে বিনিয়োগ তো অন্যদিকে শিল্পবান্ধব নয়া নীতির ঘোষণা করেছেন মুখ্যমন্ত্রী। পানাগড় শিল্পতালুকে ৪০০ কোটির পলিফিল্মের কারখানার ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেছেন তিনি। জানিয়েছেন, ওয়েস্টবেঙ্গল ইন্ডাস্ট্রিয়াল বোর্ড গঠনের কথা।

কিন্তু সেই শিল্প ঘোষণার মস্ত বেলুনটিতে শ্লেষের কাঁটা বিঁধিয়ে কার্যত চুপসে দেওয়ার চেষ্টা করেছেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনকড। বৃহস্পতিবার বাণিজ্য সম্মেলনে বিনিয়োগ নিয়ে রাজ্যকে তুলোধোনা করতে গিয়ে নিজের টুইটারে রাজ্যপাল লিখলেন, “২০২০ সালের ২৫ আগস্ট  ১২ কোটি টাকা বিনিয়োগের যাবতীয় তথ্য চেয়েছিলাম। কিন্তু এখনও তা পাইনি। একবছরে কোনওরকম উত্তর পাইনি।”

বুধবার পানাগড়ে একটি কারখানার উদ্বোধন করে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, রাজ্যে শিল্পের বিরাট সম্ভাবনা রয়েছে। সেজন্য বিশেষ কমিটি মাসে একবার বৈঠকে বসবে বলেও জানান তিনি। যদিও বিজেপির কটাক্ষ, ১০ বছরে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকার যে বিনিয়োগ এসেছে বলে দাবি করেছে গুজরাতে তার থেকে বেশি বিনিয়োগ এসেছে গত ৯ মাসে। এবার একই ইস্যুকে সরকারকে বিঁধলেন রাজ্যপাল। বিধানসভা নির্বাচনের পর থেকে রাজ্য সরকারকে আক্রমণের তেজ কিছুটা কমালেও তিনি যে মুখ বন্ধ করে বসে থাকার মানুষ নন তা একবার ফের মনে করিয়ে দিলেন রাজভবনের বাসিন্দা।

রাজ্যপাল টুইটে গতবছর মুখ্যমন্ত্রীকে পাঠানো চিঠিটিও জুড়ে দিয়েছেন । গতবছর শুধু তথ্য তলবই নয়, ধনকড় অভিযোগ করেছিলেন, বানিজ্য সম্মেলনের আয়োজনে বিস্তর আর্থিক গণ্ডগোল ছিল। এটা ঘটনা যে রাজ্যপালের সঙ্গে রাজ্য প্রশাসনের তীব্র মতবিরোধ রয়েছে যা বারংবার বাইরে এসেছে। কিন্তু এটাও অস্বীকার করার নয় যে গত ১০বছরে এরাজ্যে বড়সড় বিনিয়োগ তেমন ভাবে হয়নি। প্রতিবছরই বাণিজ্য সম্মেলনে যে বিনিয়োগের কথা ঘোষণা হয় তার কতটা বাস্তবে বিনিয়োগ হয় তার কোনও তথ্য সরকার বা এরাজ্যের সংবাদপত্রগুলিও তুল্যমূল্য হিসাবে প্রকাশ করেনা।

- Advertisement -
Latest news
Related news