Sunday, July 21, 2024

Kharagpur Midnapore Jhargram Weather: খড়গপুর মেদিনীপুর ঝাড়গ্রামে হালকা নয়, হতে পারে ভারী বৃষ্টি ! কমলা সতর্কতা জারি করল আবহাওয়া দপ্তর, মাথায় হাত চাষিদের

The worst affected areas are Kharagpur, Medinipur and Jhargram. Besides, heavy rains are also expected in Birbhum, Nadia, Dui Burdwan and East Midnapore, the Alipore Meteorological Department said. A cyclone in the Andaman Sea is being blamed for the recurrence of the disaster in several districts of South Bengal. According to the meteorological department, the waterlogged clouds have accumulated in the western part of South Bengal due to this.Keep in mind that the target of nature this time is mainly the western part of South Bengal. In that circle fall Kharagpur, Medinipur, Jhargram. Alipore said this could lead to heavy rains. For this reason, orange alert has already been issued in Birbhum, Nadia, Dui Burdwan, Dui Medinipur and Jhargram districts of South Bengal.

- Advertisement -spot_imgspot_img

নিজস্ব সংবাদদাতা: ফের দুর্যোগের ঘনঘটা খড়গপুর মেদিনীপুর ও ঝাড়গ্রাম। পাশাপাশি বীরভূম, নদিয়া, দুই বর্ধমান এবং পূর্ব মেদিনীপুরেও ভারী বৃষ্টি হওয়ার সম্ভবনা রয়েছে বলে জানিয়ে দিল আলিপুর আবহাওয়া দপ্তর। দক্ষিণবঙ্গের একাধিক জেলায় ফের এই দুর্যোগের আশঙ্কার পেছনে আন্দামান সাগরে তৈরি হওয়া এক ঘূর্ণাবর্তকেই দায়ী করা হচ্ছে। আর তারই জেরে দক্ষিনবঙ্গের পশ্চিম অংশে ব্যাপক জলভরা মেঘ সঞ্চিত হয়েছে বলে জানানো হয়েছে আবহাওয়া দপ্তরের সূত্রে।

আরো খবর আপডেট মোবাইলে পেতে ক্লিক করুন এখানে

মনে রাখতে প্রকৃতির নিশানায় এবার মূলতঃ দক্ষিণবঙ্গের পশ্চিম অংশের জেলাগুলি। যে বৃত্তের মধ্যে পড়ছে খড়গপুর, মেদিনীপুর, ঝাড়গ্রাম। আলিপুর জানিয়েছে এর ফলে প্রবল বৃষ্টিপাত হতে পারে। যে কারনে ইতিমধ্যেই দক্ষিণবঙ্গের বীরভূম, নদিয়া, দুই বর্ধমান, দুই মেদিনীপুর এবং ঝাড়গ্রাম জেলায় কমলা সতর্কতা জারি করা হয়েছে। কলকাতা, হাওড়া বা দুই ২৪পরগনার জন্য কোনও সতর্কতা নেই। বলা হয়েছে মূলতঃ এই সাত জেলায় বজ্রবিদ্যুৎ-সহ ভারী বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া দফতর। দুর্যোগের আশঙ্কায় পাশাপাশি, কলকাতার আকাশ মেঘলা থাকবে। সেই সঙ্গে এ শহরে বজ্রবিদ্যুৎ-সহ বিক্ষিপ্ত বৃষ্টিও হতে পারে।

এদিকে আবহাওয়া দপ্তরের এই পূর্বাভাসে মাথায় হাত পড়েছে চাষিদের। বারবার প্রবল বর্ষণে দারুন ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন দুই মেদিনীপুর ও ঝাড়গ্রামের কৃষককুল। ধানের ক্ষতি ছাড়াও বারংবার মার খেয়েছে শীতের সবজি। কয়েক দফায় সেই সবজি ধ্বংস হওয়ার পর আবার নতুন করে ক্ষেত সাজিয়ে কৃষক। সবে মাত্র উঠতে শুরু করেছে ফুলকপি, বাঁধাকপি, মুলো, পালং, টমেটো। অনেকে তাও তুলতে পারেননি ফলে বাজার দরে আগুন লেগে রয়েছে। এরমধ্যে বৃষ্টি নতুন করে ক্ষেত ভাসালে চাষির পক্ষে মাথা খোঁড়ার জোগাড়। অন্যদিকে ক্ষেতে রয়েছে ফলন্ত পাকা ধান। বারংবার ধান ভেসে যাওয়ার পর এই ধান টুকুই টিকে রয়েছে অনেকের। এবার পাকা ধানে আবহাওয়া মই দিলে সমবৎসর চলবে কী করে তাই ভাবছে চাষিরা।

আবহাওয়া দফতর জানিয়েছে, আন্দামান সাগরে একটি নিম্নচাপ তৈরি হয়েছে। যার জেরে রবিবার দক্ষিণের জেলাগুলিতে ভারী বৃষ্টি হতে পারে। নিম্নচাপের জেরেই রাজ্যে প্রচুর জলীয় বাষ্প ঢুকছে। ফলে উত্তুরে হাওয়ায় বাধা পাচ্ছে শীত। সে কারণে নভেম্বরের মাঝামাঝি সময়েও রাজ্যে তাপমাত্রার পারদ ততটা নীচে নামতে পারছে না।

দক্ষিণবঙ্গের মতো প্রবল বৃষ্টির সম্ভাবনা না থাকলেও রবিবার কলকাতায় বেশ কয়েক দফা বৃষ্টি হতে পারে। সেই সঙ্গে রাতের দিকে দুই শহরের তাপমাত্রা ২০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের কাছাকাছি থাকবে। রবিবারের মতোই সোমবারও দক্ষিণবঙ্গে বৃষ্টি হতে পারে। আজ রবিবার খড়গপুর মেদিনীপুরের দিনের বেলা তাপমাত্রা ২৭ ডিগ্রি সেলসিয়াসের কাছাকাছি থাকার সম্ভাবনা বলে জানিয়েছে হাওয়া অফিসের আধিকারিকেরা। রাতে তা নেমে ২০ ডিগ্রির গায়ে থাকছে। বাতাসের সর্বোচ্চ আর্দ্রতা পরিলক্ষিত হয়েছে ৯৭%। সামান্য বৃষ্টি হয়েছে দুই শহরে যা ১.৪৬ মিলিমিটার। আগামী দু’দিন রাতের তাপমাত্রায় বিশেষ বদল হবে না বলেও জানিয়েছেন তাঁরা। তবে দিনের বেলা তাপমাত্রা স্বাভাবিকের থেকে কম থাকবে। তার পর তা ধীরে ধীরে বাড়বে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া দফতর।

 

- Advertisement -
Latest news
Related news