Saturday, December 9, 2023

Kharagpur: খড়গপুর বেলদা দাঁতন সহ জেলা জুড়ে ব্যাপক তল্লাশি, উদ্ধার ১৫ হাজার কেজি বাজি, গ্রেপ্তার অর্ধশতাধিক! কারা বাজি ফাটাচ্ছে দেখার জন্য চোখ রাখা হবে সিসিটিভিতে

Kharagpur Town Police Station launched a massive operation on Tuesday night. Police conducted operations in three areas of the city by consultation from earlier. A search operation was carried out in South Inda area of ​​Ward No. 24 of Kharagpur city and 25 kg of banned words were seized. And a vendor named Shaktipada Sahu has been arrested. A large quantity of Tarabati and large tubri have been seized from here. On the other hand, various prohibited words have been seized in a raid in Chhattisgarhpara area of ​​Ward No. 18. A vendor named Murli Rao has been arrested. Police have seized a variety of bombs from here. A vendor named R Shyam has been arrested from Joyhindnagar area of ​​Ward No. 15. From water bombs to various types of bombs have been seized from here. Amount 30 kg. A total of 63 kg of banned words were seized from Kharagpur and three vendors were arrested. West Midnapore Superintendent of Police Dinesh Kumar said, '14942 kg of verbiage was recovered till 6 pm on Wednesday. The total number of these bets was 23,410 which was in 1,071 packets. 59 cases have been filed in the incident and 53 people have been arrested.

- Advertisement -spot_imgspot_img

নিজস্ব সংবাদদাতা: দীপাবলি ও কালীপূজার আগের ২৪ঘন্টায় খড়গপুর, বেলদা, দাঁতন সহ জেলার বিভিন্ন জায়গায় তল্লাশি চালিয়ে বিপুল পরিমাণ নিষিদ্ধ শব্দবাজি বাজেয়াপ্ত করল পশ্চিম মেদিনীপুর পুলিশ।

উদ্ধার হওয়া শব্দবাজির পরিমান প্রায় ১৫ হাজার কেজি বা ১৫০ কুইন্টাল। গত ১দশকে এত পরিমান শব্দবাজি উদ্ধার হয়নি বলেই পুলিশ জানিয়েছে। পুলিশ আরও জানিয়েছে জেলার বিভন্ন জায়গায় রেড হলেও মেদিনীপুর ও খড়গপুর মহকুমা থেকেই উদ্ধার হওয়া বাজির সিংহভাগ পাওয়া গেছে।

মঙ্গলবার রাত ও বুধবার দিনভর তল্লাশির পরেও অভিযান বহাল রাখা হয়েছে শুধু তাই নয় বুধবার রাতে এবং বৃহস্পতিবারও অভিযান জারি থাকছে বলে জানিয়েছেন পশ্চিম মেদিনীপুর জেলা পুলিশের এক শীর্ষ আধিকারিক।
পশ্চিম মেদিনীপুরের পুলিশ সুপার দীনেশ কুমার জানিয়েছেন,’ বুধবার সন্ধ্যা ৬টা অবধি ১৪৯৪২ কেজি শব্দবাজি উদ্ধার করা হয়েছে। এই বাজির সংখ্যা মোট ২৩হাজার ৪১০টি যা ১হাজার ৭৮১টি প্যাকেটে ছিল। ঘটনায় ৫৯টি মামলা দায়ের করা হয়েছে এবং ৫৩ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।’ জেলা পুলিশের এক আধিকারিক জানিয়েছেন, ‘গত ১০ বছর এই জেলায় একদিনে এত বাজি উদ্ধারের রেকর্ড নেই তাছাড়া কালীপূজা বা দীপাবলির আগে এতবড় রেইড আগে কখনও হয়েছে বলে আমি অন্ততঃ মনে করতে পারছিনা। বর্তমান পুলিশ সুপার শব্দবাজি ফাটানোর পরিমান যতদূর সম্ভব কম করতে বদ্ধ পরিকর। এ ব্যাপারে কড়া নির্দেশিকা পাঠানো হয়েছে থানা গুলিকে।

মঙ্গলবার রাতে বড়সড় অভিযান চালায় খড়গপুর টাউন থানা। আগে থেকে খবর সংগ্ৰহ করে পুলিশ শহরের তিনটি এলাকায় অভিযান চালায়। খড়গপুর শহরের ২৪ নম্বর ওয়ার্ডের সাউথ ইন্দা এলাকায় অভিযান চালিয়ে ২৫ কেজি নিষিদ্ধ শব্দবাজি আটক করা হয়েছে। আর শক্তিপদ সাহু নামে এক বিক্রেতাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এখান থেকে বিপুল পরিমাণ তারাবাতি ও বড় আয়তনের তুবড়ি আটক করা হয়েছে। অপরদিকে ১৮ নম্বর ওয়ার্ডের ছত্তিশপাড়া এলাকায় অভিযান চালিয়ে বিভিন্ন ধরনের নিষিদ্ধ শব্দবাজি আটক করা হয়েছে। গ্ৰেফতার করা হয়েছে মুরলী রাও নামে এক বিক্রেতাকে। এখান থেকে পুলিশ মূলত বিভিন্ন রকমের বোম আটক করেছে। আর ১৫ নম্বর ওয়ার্ডের জয়হিন্দনগর এলাকা থেকে আর শ্যাম নামে এক বিক্রেতাকে গ্ৰেফতার করা হয়েছে। এখান থেকে জল বোম থেকে শুরু করে বিভিন্ন রকমের বোম আটক করা হয়েছে। পরিমাণ ৩০ কেজি। খড়গপুর থেকে মোট ৭৩ কিলো নিষিদ্ধ শব্দবাজি আটক করেছে ও তিনজন বিক্রেতাকে গ্ৰেফতার করা হয়েছে।

অন্যদিকে বেলদা থানার পুলিশ মঙ্গলবার রাতে অভিযান চালিয়ে বেলদা থানার পুলিশ গুড়দলা এলাকায় এক কুইন্টাল নিষিদ্ধ শব্দবাজি আটক করেছে। তারসাথে দাঁতন দুই নম্বর ব্লকের হরিপুর এলাকায় বেআইনিভাবে নিষিদ্ধ শব্দবাজি মজুত করে বিক্রির অভিযোগে তিনজনকে গ্রেফতার করেছে। ধৃতদের বুধবার আদালতে হাজির করা হয়েছে। অভিযান চালানো হয়েছে মেদিনীপুর সদর, গোয়ালতোড়, ঘাটাল সহ বিভিন্ন এলাকায়।

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে চেষ্টা করা হচ্ছে শহরে যতটা সম্ভব শব্দবাজি ফাটানো বন্ধ করা। তারজন্য বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালানো হচ্ছে। ঠিক করা হয়েছে কালীপুজোর দুটি দিন বৃহস্পতিবার ও শুক্রবার বিকালের পর থেকে গোটা শহরে নজরদারি বাড়ানো হবে। পুলিশের টহল বাড়ানো হবে। তারসাথে সিসিটিভি ক্যামেরার মাধ্যমে নজর রাখা হবে। খড়গপুর শহরের আবাসনগুলি এবং নির্দিষ্ট কিছু জায়গা বেছে নিয়ে বৃহস্পতি ও শুক্রবার বিশেষ অভিযান চালানোর প্রস্তুতিও নিয়েছে। শুধু বাজি বিক্রেতা নয় যারা বাজি ফাটাবে তাদেরও দেখতে পেলে গ্রেপ্তার করা হবে বলে পুলিশ জানিয়েছে।

- Advertisement -
Latest news
Related news