Sunday, July 21, 2024

Partha SFI: কান নয়, মাথা চাই! পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের জামাইয়ের স্কুলে এসএফআই

- Advertisement -spot_imgspot_img

শশাঙ্ক প্রধান: কান টানলে মাথা আসে ঠিকই কিন্তু ইডি আর সিবিআই মিলে শুধু কানই টানছে কিন্তু মাথার দিকে নজর দিচ্ছেনা। পশ্চিম মেদিনীপুরের পিংলায় পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের জামাই কল্যাণময় ভট্টাচার্য্যর স্কুলের সামনে বিক্ষোভ দেখাতে গিয়ে ‘দিদি আর মোদীর সেটিং’ আছে বলে দাবি করেছেন ভারতের ছাত্র ফেডারেশন বা এসএফআইয়ের পশ্চিম মেদিনীপুর জেলা তথা পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য কমিটির সদস্য প্রসেনজিৎ মুদি। শনিবারই গ্রেফতার হয়েছেন রাজ্যের প্রাক্তন শিক্ষামন্ত্রী তথা বর্তমান শিল্পমন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়। তারই কয়েকঘন্টার মধ্যেই তাঁর স্ত্রী প্রয়াত বাবলি চ্যাটার্জী নামাঙ্কিত ইন্টারন্যাশনাল স্কুলের সামনে জড়ো হন এসএফআই সদস্যরা। সঙ্গে ডিওয়াইএফআই ও স্থানীয় কৃষকসভার সদস্যরাও উপস্থিত ছিলেন। সমবেত বিক্ষোভকারীরা দাবি করেন শুধু পার্থ চট্টোপাধ্যায় নয় সারদা, নারদা, কয়লা পাচার, গরু পাচার ইত্যাদি নানা কান্ডে অভিযুক্ত আরও বড় বড় তৃনমূল নেতাদের আড়াল করছে।

আরো খবর আপডেট মোবাইলে পেতে ক্লিক করুন এখানে

উল্লেখ্য গতকাল, শুক্রবার কলকাতার ১৩টি জায়গার পাশাপাশি পশ্চিম মেদিনীপুরের এই স্কুল লাগোয়া কৃষচন্দ্র অধিকারীর বাড়িতে হানা দেন ইডির আধিকারিকরা। কৃষ্ণচন্দ্র পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের জামাই কল্যাণময় ভট্টাচার্যর মামা। পিংলার মত একটি জায়গায় জামাইয়ের নামে টাকা বিনিয়োগ করেছেন পার্থ চট্টোপাধ্যায়ই, এমনটাই মনে করছেন ইডি আধিকারিকরা। তাঁরা কৃষ্ণচন্দ্র অধিকারী ও তাঁর পরিবারের এক মহিলার মোবাইল ফোন এবং বেশকিছু কাগজপত্র বাজেয়াপ্ত করেছেন। পিংলার মত একটা গ্রামীন এলাকায় প্রায় ১০০ কোটি টাকার এই সম্পত্তির উৎস খুঁজে বের করুক ইডি, এমন দাবিও করেছেন এসএফআই নেতারা।

এসএফআই নেতা প্রসেনজিৎ মুদি বলেন, “ভারতের ৭৫ তম স্বাধীনতা দিবস উদযাপন হচ্ছে এখন যে স্বাধীনতা অর্জনে বাংলার একটা নিজস্ব গর্ব রয়েছে। বাঙালির সেই গর্ব শিক্ষা ও সংস্কৃতির। সেই রাজ্যেরই প্রাক্তন শিক্ষামন্ত্রী ও বর্তমান শিল্পমন্ত্রীর ঘনিষ্ঠজনের কাছ থেকে উদ্ধার হয়েছে কোটি কোটি টাকা এবং মন্ত্রী গ্রেফতার হয়েছেন। আমরা জানি কান টানলে মাথা আসে কিন্তু কোনও এক অজ্ঞাত কারণে বারংবার মাথা অধরা থেকে যায়। এর আগেও বহুবার কান টানা হয়েছে কিন্তু মাথা আড়ালে থেকেই গেছে। আমরা চাই এবার মাথাও আসুক। সেই মাথাদের ধরার দাবীতেই আমাদের এই বিক্ষোভ। মাত্র একদিন আগেই ২১শে জুলাই নিজেদের দলীয় সমাবেশ থেকে মুখ্যমন্ত্রী দাবি করেছিলেন তৃনমূল নাকি ভারতের সবচেয়ে আদর্শবাদী দল। ২৪ ঘন্টা পেরুলোনা সারা ভারত দেখতে পেল সবচেয়ে নিকৃষ্ট রাজনৈতিক দল এই তৃনমূল কংগ্রেস। পুরোটাই চোরডাকাতদের নিয়ে তৈরি একটা রাজনৈতিক দল হল তৃনমূল কংগ্রেস।” এদিন মেদিনীপুর শহর সহ বিভিন্ন জায়গায় ‘চোর ধর, জেলে ভরো’ শ্লোগান তুলে মিছিল করতে দেখা গেছে এসএফআই ডিওয়াইএফআইকে।

- Advertisement -
Latest news
Related news