Sunday, July 21, 2024

Midnapore: নির্জন মন্দির চত্বরে যুবতীর সাথে অপকীর্তি পুলিশ কর্মীর! উত্তাল চন্দ্রকোনা, পথ অবরোধ, লাঠি চার্জ, ফের পথ অবরোধ

- Advertisement -spot_imgspot_img

নিজস্ব সংবাদদাতা: ভরদুপর, নির্জন মন্দির চত্বর। প্রাচীর টপকে এক যুবতীকে নিয়ে সেই মন্দির চত্বরে এক যুবক অপকর্মে মত্ত্ব এক যুবতীর সাথে। কয়েক সেকেন্ডের একটি ভিডিও ফুটেজ যা কিনা ওই মন্দিরের বলেই জানা গেছে। মন্দিরের ৬ নম্বর সিসি ক্যামেরায় ধরা পড়েছে বৃহস্পতিবার বেলা ৩.৪৫ নাগাদ এক যুবতীকে নিয়ে মন্দিরের একটি আড়াল অংশে ঢুকে পড়ছেন ওই যুবক। তারপর কিছু ঘনিষ্ঠতা, আলিঙ্গন ইত্যাদি। এই ফুটেজ দেখার পরই চমকে ওঠে মন্দির কমিটি, এ যে পুলিশ কর্মী। যেই রক্ষক, সেই ভক্ষক! মন্দির কমিটি খবর দেয় গ্রামের বিশিষ্ট জনকে। অভিযোগ ঘটনার বিহীত চেয়ে থানায় যাওয়ার পর উল্টে ভর্ৎসনার শিকার হতে হয় গ্রামবাসী এক ব্যক্তিকে। তারপরই শুরু হয় পথ অবরোধ, পুলিশের লাঠিচার্জ, পাল্টা পথ অবরোধ। সব মিলিয়ে বৃহস্পতিবার বিকাল থেকেই ধুন্দুমার পশ্চিম মেদিনীপুরের চন্দ্রকোনা থানা এলাকার ধরমপুর।

আরো খবর আপডেট মোবাইলে পেতে ক্লিক করুন এখানে

বিক্ষুব্ধ গ্রামবাসীদের অভিযোগ ওই চন্দ্রকোনা থানার অধীনে কর্মরত ওই যুবক একজন এনভিএফ কর্মী। ধরমপুর গ্রামে অবস্থিত একটি কালিকা আশ্রম মন্দির চত্বরে যুবতীকে নিয়ে গিয়ে অপকর্ম করেছিল সে। একটি পবিত্রস্থানে এই নক্কারজনক কাজের প্রতিকার চাইতেই পুলিশের কাছে যাওয়া হয়েছিল গ্রামবাসীদের তরফ থেকে কিন্তু সেই সময় দায়িত্বপ্রাপ্ত পুলিশ আধিকারিক তাঁদের অভিযোগকে কোনও গুরুত্ব না দিয়ে পাল্টা বিষয়টি নিয়ে অযথা জলঘোলা করা হচ্ছে বলে গ্রামবাসীদের বিরুদ্ধেই অভিযোগের আঙুল তোলেন। আর এতেই ক্ষুব্ধ গ্রামবাসীরা ধরমপুর এলাকায় চন্দ্রকোনা টাউন-চন্দ্রকোনা রোড রাজ্যসড়ক অবরোধ শুরু করে। মন্দির কাম আশ্রমটি ঠিক ওই জায়গায়।

মন্দির কমিটির দাবি প্রথমে হাতে নাতে ধরাও হয়েছিল দু’জনকে। যদিও পরে দৌড়ে পালাতে সক্ষম হয় ওই এনভিএফ কর্মী। এরপরই সিসিটিভি ফুটেজ দেখা হয় এবং সেখানেই পরিস্কার হয়ে যায় ঘটনা। বিকাল সাড়ে পাঁচটা নাগাদ পথ অবরোধ শুরু করেন গ্রামবাসীরা। দাবী করেন ঘটনাস্থলে আসতে হবে প্রশাসনকে। বিচার করতে হবে এই অন্যায়ের। প্রথম পর্যায়ে প্রায় দেড় ঘন্টা অবরোধ চলার পর ঘাটালের মহকুমা পুলিশ শাসক উপস্থিত হন। তিনি অবরোধকারীদের সঙ্গে আলোচনা চালাতে শুরু করেন। অভিযোগ, সেই আলোচনা চলার সময়েই হঠাৎই হাজির হয় র‍্যাফ এবং এলোপাথাড়ি লাঠি চালাতে শুরু করে। লাঠির আঘাতে কয়েকজন গ্রামবাসী আহত হয়েছেন বলেও অভিযোগ। প্রথমে মানুষ ছড়িয়ে ছিটকে চলে যান। পরে আবারও সংগঠিত হয়ে অবরোধ শুরু হয়েছে বলে খবর পাওয়া গেছে। নতুন করে শুরু হওয়া অবরোধ রাত ১০টা পেরিয়েও চলছে বলে জানা গেছে। মহকুমা পুলিশ আধিকারিক অগ্নিশ্বর চৌধুরী আলোচনা চালিয়ে যাচ্ছেন।

- Advertisement -
Latest news
Related news