Sunday, July 21, 2024

Kharagpur Colours: খড়গপুরে রঙের উৎসব থেকে নিজেদের পিঠে আবীরে হরফ লিখে থেকে রাশিয়াকে শান্তির বার্তা পাঠালেন ছাত্রীরা

The students of Kharagpur sent a message of peace to the war-torn Ukraine and Russia, 7,000 kilometers away. Today, when spring is awake at the gates of the world, when Basanti is looking for a new youth, the youth of Ukraine and Russia are engaged in a suicide war. The students of Kharagpur Tribal BEd Training College requested in a fancy way to stop that war immediately and bring back the atmosphere of peace all over the world. Apart from Kharagpur Tribal B.Ed College, students of Kharagpur Tribal ITI, Renaissance International School and Kharagpur Pharmaceutical Institute also participated in this initiative.

- Advertisement -spot_imgspot_img

নিজস্ব সংবাদদাতা: ৭০০০ কিলোমিটার দূরে যুদ্ধে জড়িয়ে পড়া ইউক্রেন আর রাশিয়ার উদ্দেশ্যে শান্তির বার্তা পাঠালেন খড়গপুরের ছাত্রছাত্রীরা। বিশ্বের দুয়ারে আজ যখন বসন্ত জাগ্রত, যখন বাসন্তী খুশিতে মেতে উঠতে চাইছে নতুন যৌবন তখন ইউক্রেন আর রাশিয়ার যৌবন ব্যস্ত হয়ে পড়েছে আত্মঘাতী যুদ্ধে। সেই যুদ্ধ অবিলম্বে থামিয়ে সারা বিশ্বজুড়ে শান্তির বাতাবরণ ফিরিয়ে আনতে অভিনব কায়দায় অনুরোধ জানালেন খড়গপুর ট্রাইবাল বিএড ট্রেনিং কলেজের পড়ুয়ারা। খড়গপুর ট্রাইবাল বি.এড কলেজের পাশাপাশি এই উদ্যোগে সামিল হয়েছিলেন খড়গপুর ট্রাইবাল আইটিআই, রেনেসাঁ ইন্টারন্যাশনাল স্কুল এবং খড়গপুর ফার্মাসিউটিক্যাল ইনস্টিটিউটের পড়ুয়ারাও।

আরো খবর আপডেট মোবাইলে পেতে ক্লিক করুন এখানে

আগামী কাল থেকে দু’দিন ব্যাপী দেশজুড়ে রঙের উৎসব হোলি বা দোল। তার আগেই বিএড ট্রেনিং কলেজের পড়ুয়ারা মেতে উঠেছিলেন রঙের উৎসবে। নানা রঙের আবীরে মেতে ওঠার পাশাপাশি চলল সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানও। এর এরই পাশাপাশি বিশ্ব ভাতৃত্বের আহবান জানিয়ে নিজেদের পিঠে আবীর দিয়ে লিখলেন যুদ্ধ নয়, শান্তি চাই। স্টপ ওয়ার ইত্যাদি। পড়ুয়াদের এই উদ্যোগকে প্রশংসা জানালেন অধ্যাপকরাও।

প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, যুদ্ধ চলছে দুটি দেশের মধ্যে এবং প্রতিদিনই ধ্বংস হচ্ছে দেশের মূল্যবান ঐতিহ্য থেকে ঘরবাড়ি, মানুষের দৈনন্দিন জীবনের যোগাযোগ ব্যবস্থা। তারও চেয়ে বড় কথা মানুষের প্রাণ যাচ্ছে প্রতিদিনই। সন্তান হারাচ্ছেন মা-বাবা, স্ত্রী হারাচ্ছেন স্বামীকে, শিশুরা হারাচ্ছে বাবাকে। মানুষের দেওয়ালে পিঠ ঠেকে যাচ্ছে। এই পরিস্থিতিতে আমরা এতদূর থেকে কী করতে পারি? আমরা শুধু আবেদন করতে পারি যুদ্ধ বন্ধ করার জন্য। বসন্ত উৎসবের প্রাক্কালে আমাদের ছাত্রছাত্রীরা নিজেদের পিঠে আবীর দিয়ে লিখে সেই বার্তা পাঠিয়েছেন।

- Advertisement -
Latest news
Related news